ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২

ভালোবাসা দিবসে ফুলের সাথে জন্মনিবন্ধন দিয়ে নেট দুনিয়ায় ভাইরাল চেয়ারম্যান ইমরুল

প্রকাশ: ২০২২-০২-১৫ ০৮:৫৩:২৯ || আপডেট: ২০২২-০২-১৫ ১১:৩১:০৭

 

পলাশ বড়ুয়া:
বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ফুলের সাথে নাগরিক সেবা দিয়ে নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হলেন এক ইউপি চেয়ারম্যান। দেশের শীর্ষ স্থানীয় গণমাধ্যম গুলো তার ব্যতিক্রমধর্মী এই আয়োজনকে প্রচার ও প্রকাশ করতে দেখা গেছে।

প্রথম আলো শিরোনাম করেছে “ভালোবাসা দিবসে ঘরে বসে জন্মনিবন্ধন ও গোলাপ পেল তাঁরা”।

চ্যানেল আই করেছে “ভালোবাসা দিবসে লাল গোলাপ আর জন্মনিবন্ধন মানুষের ঘরে ঘরে”।

আরটিভি’র শিরোনাম “ভালোবাসা দিবসে জন্মনিবন্ধন কার্ডের সাথে লাল গোলাপ”।

যুগান্তর করেছে “ভালোবাসা দিবসে গোলাপের সঙ্গে জন্মনিবন্ধন”। একই ধরণের শিরোনাম করেছে কালেরকণ্ঠ, ঢাকাপোষ্ট, টিটিএন, উখিয়া খবর, কক্সবাজার জার্নালসহ অনেক গণমাধ্যমে।

এদিকে ঋতুরাজ বসন্তের শুরুতে চেয়ারম্যানের এ ধরণের আয়োজনে খুশির আমেজ বিরাজ করতে দেখা গেছে সাধারণ মানুষের মাঝে।

জানা গেছে, চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের কয়েক মাসের মধ্যে পরিষদকে তথ্য-প্রযুক্তি আধুনিকায়ন, দীর্ঘদিনের যানজট নিরসন, রাত-বিরাতে নাগরিক সেবা দিয়ে এবং গরু বাজারের টোল/হাসিল কমিয়ে সহনশীল পর্যায়ে নিয়ে এসে ইতোমধ্যে বেশকিছু উল্লেখযোগ্য কাজ করেছেন তিনি।

এবার ভালোবাসা দিবসে জনগণের মাঝে লাল গোলাপের সাথে জন্মনিবন্ধন উপহার দিয়েছেন ওই চেয়ারম্যান।

বলছি কক্সবাজারের উখিয়ার হলদিয়াপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরীর কথা।

১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকে লাল গোলাপের সাথে আর জন্মনিবন্ধন মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেন তিনি।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রম পুনরায় চালু হলেও নানা জটিলতায় সোনার হরিণ হয়ে উঠা জন্মনিবন্ধন চেয়ারম্যান নিজ হাতে ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছে সেটিকে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহিতার বাস্তবায়ন মনে করছেন সুশীল সমাজের মানুষেরা।

হলদিয়াপালং এর সিকদার পাড়ার কফিল উদ্দিন সিকদার জানিয়েছেন, ভালোবাসা দিবসে চেয়ারম্যান নিজে ফুল আর জন্মনিবন্ধন নিয়ে আমার কাছে আসবে কখনো কল্পনাই করিনি। জনগণের প্রতি চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েসের এই ভালোবাসার দেশের অন্যান্য জনপ্রতিনিধিদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

হলদিয়াপালং এর ইউপি সদস্য সরোয়ার কামাল বাদশা বলেন, আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি সকালে চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী একহাতে গোলাপ আর আরেক হাতে ৩’শ জন্মনিবন্ধন নিয়ে আমাদের এলাকায় আসেন ও বিতরণ করেন।

চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী জানান, জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্ব হলো জনগণকে ভালোবাসা, জনগণের সেবা করা। তাই আজ ভালোবাসা দিবসটি আমি আমার ইউনিয়নের জনগণের সাথে সেবা ও ভালোবাসা দিয়ে পালন করছি।