প্রকাশিত: আগস্ট ১৬, ২০২৩ ৩:১৪ পিএম
নিজস্ব প্রতিবেদক::
কক্সবাজারের উখিয়ায় গহীন পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে রাসেল বাহিনীর প্রধান রাসেলসহ সাতজনকে  বিপুল পরিমাণ অস্ত্রসহ আটক করেছে র‍্যাব-১৫।
মঙ্গলবার (১৫ আগস্ট) রাতে পালংখালী ইউনিয়নের থাইংখালীর বটতলী এলাকার গহীন পাহাড়ে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
আটককৃতরা হলো উখিয়ার থাইংখালী এলাকার মৃত শেখ হাবিবুর রহমানের ছেলে শেখ রাসেল প্রকাশ ডাকাত রাসেল(৩২), ঘোনারপাড়া এলাকার আব্দু শরিফের ছেলে নুরুল হাকিম(৪০),টেকনাফ রঙ্গীখালী দুদু মিয়ার ছেলে মো. ছলিম(৩৮), কবির আহমদের ছেলে নুরুল আমিন(৪২),নুরুল আমিনের ছেলে কায়সার উদ্দিন(২০), রঙ্গীখালী লামারপাড়া এলাকার মৃত দিল মোহাম্মদের ছেলে মো. সাদেক হোসেন(৩০) ও টেকনাফ কাঞ্জরপাড়া এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে সাহাব উদ্দিন(২৫)। এসময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার করতে সক্ষম হয় র‍্যাব।
অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করেন র‍্যাব-১৫ অধিনায়ক(ভারপ্রাপ্ত) মেজর সৈয়দ সাদিকুল হক।
তিনি বলেন,” গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থাইংখালী এলাকার সাধারণ মানুষের মূর্তিমান আতঙ্ক ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অপরাধ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসার খবরে গহীন পাহাড়ে অভিযান পরিচালনা করে রাসেল বাহিনীর প্রধান রাসেল ও তার অপর সহযোগী ছয়জনসহ সাতজনকে আটক করতে সক্ষম হয়।
 এ সময় তাদের কাছ থেকে ৬টি দেশীয় তৈরী একনলা বড় বন্দুক,২টি এলজি, ১২রাউন্ড শর্টগানের তাজা কার্তুজ, ৭ রাউন্ড রাইফেলের তাজা কার্তুজ,১রাউন্ড খালি কার্তুজ,১টি রামদা, ২০হাজার পিস ইয়াবা এবং ৪টি বাটন মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।”
র‍্যাব জানায়,”গ্রেফতারকৃত চক্র সদস্যদের  নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ডাকাত দলটি উখিয়ার তেলখোলা বটতলী ও টেকনাফের রঙ্গীখালী গহীন পাহাড়ী এলাকায় আস্তানা গড়ে তুলে এবং সেখান থেকে মূলহোতা ডাকাত রাসেলের নেতৃত্বে খুন,অপহরণ, ডাকাতি ও দস্যুতা, চাঁদাবাজি, অবৈধ বালু ব্যবসা, অস্ত্র ও মাদক ব্যবসাসহ অন্যান্য সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এছাড়াও দীর্ঘদিন ধরে উখিয়ার থাইংখালী বনের বিভিন্ন স্পটে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে বহু মামলার আসামী চিহ্নিত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ডাকাত রাসেল। সে তালিকাভুক্ত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী এবং ডাকাত রাসেল নামে খ্যাত। গ্রেফতারকৃত ডাকাত রাসেলের সাথে স্থানীয় কিছু জনপ্রতিনিধি সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের ছত্র-ছায়ায় সে নানা অপরাধ অপকর্ম করে থাকে। তার নেতৃত্বে রাসেল বাহিনী নানাবিধ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সংঘঠিত করতো। এমনকি একাধিকবার বিজিবি, পুলিশ এবং বনবিভাগের ফোর্সদের উপর সশস্ত্র হামলা করেছে।
ধৃত রাসেলের বিরুদ্ধে ডাকাতি, অপহরণ, মাদক, মারামারি, অস্ত্রসহ বিভিন্ন অপরাধে ১৫টির অধিক মামলা রয়েছে এবং সে একাধিক মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত আসামী বলে জানা যায়।
উল্লেখ্য, গত ২১ সেপ্টেম্বর  ইউএনও উখিয়া ও বনবিভাগের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে তার কয়েকটি আস্তানার একটি আস্তানা হতে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করেন।
উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মোহাম্মদ আলী জানিয়েছেন, এখনো এজাহার পায়নি। এজাহার পেলে আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে।

পাঠকের মতামত

মেরিনড্রাইভ সড়কে বর যাত্রীবাহী মাইক্রোবাস দুমড়েমুচড়ে আহত-৪

           আব্দুস সালাম টেকনাফ (কক্সবাজার) কক্সবাজারের টেকনাফের মেরিনড্রাইভ সড়কে বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুমড়েমুচড়ে মারাত্মকভাবে ...

হোয়াইক্যংয়ে অবৈধভাবে কবরস্থানে স্থাপনা নির্মাণ ইউএনও’র উচ্ছেদ

           প্রতিনিধি। টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের কাঞ্জরপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের কবরস্থানের জায়গা জোরপুর্বক দখল করে ...

অস্ত্র-গুলিসহ আটক-১

         শহিদুল ইসলাম। কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে অস্ত্র-গুলি সহ এক রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করেছে আর্মড ...

স্ত্রী-সন্তানের সাথে অ্যাম্বুলেন্সে করে শেষবার কক্সবাজার এলেন শাহ জালাল

            ডেস্ক রিপোর্ট বেইলি রোড ট্র্যাজেডিতে মারা যাওয়া কাস্টমস কর্মকর্তা ও তার স্ত্রী-সন্তানের মরদেহ ...