ঢাকা, বুধবার, ২৫ মে ২০২২

কোটবাজারে সন্ত্রাসী হামলার শিকার দুই সাংবাদিক

প্রকাশ: ২০২২-০৪-১৪ ১৪:২৩:৪০ || আপডেট: ২০২২-০৪-১৪ ১৪:২৪:০৬

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ফেসবুক স্ট্যাটাসের জের ধরে কক্সবাজারের উখিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছেন দুই সাংবাদিক। তারা হলেন রত্নাপালং ইউনিয়নের তেলীপাড়া এলাকার বাসিন্দা আব্দুল আজিজ এর ছেলে জসিম আজাদ ও শরীফ আজাদ। এ ঘটনার পরপর দুইপক্ষের লোকজন সংঘবদ্ধ হলে পুরো স্টেশনে থমথমে অবস্থা বিরাজ করে।

ঘটনার খবর পেয়ে উখিয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় জমজম মার্কেট থেকে বিপুল পরিমাণ লাঠিসোটা উদ্ধার করে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে হেফাজতে নেয় পুলিশ।

বুধবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে কোটবাজার মসজিদ রোডে এ ঘটনা ঘটে।

আহত শরীফ আজাদ বলেন, “আমি ও আমার ভাই আমাদের অফিসের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। অতর্কিত অবস্থায় চেয়ারম্যান পুত্র ও তার সাথে থাকা সাবেক মেম্বার নুরুল হক মনুর দুই পুত্রসহ ৭/৮ জন চিহ্নিত সন্ত্রাসী আমাদের উপর হামলা করে, প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে।”

শরীফ বলেন,” স্থানীয় জনগণ মৃত্যুর মুখ থেকে আমাদের কে উদ্ধার করে। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।”

আহত জসিম আজাদ বলেন, দোকানের হোল্ডিং ট্যাক্সসহ যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখির কারণে পরিকল্পিত ভাবে এ হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা।

এ সময় স্থানীয় ব্যবসায়ী ও কোটবাজার হকার্স সমিতির সভাপতি রেজাউল করিম বলেন, তিনি মসজিদে নামাজরত অবস্থায় তাহসিনের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ দল জসিম ও শরীফ দুই ভাইয়ের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। পরে তাদের উদ্ধার করতে গেলে তিনিসহ তার স্বজনরা লাঞ্চিত হয়।

এরপর ঘটনার মোড় নেয় ভিন্ন দিকে। দুইপক্ষের মধ্যে আঞ্চলিকতা ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে হুমকি-ধমকিও দেয় বলেও জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

এ ঘটনার খবরে বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘটনার তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবী জানায়।

উখিয়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাঈদ মুহাম্মদ আনোয়ার জানান, জসিম ও শরীফরা যদি অন‍্যায় করে থাকলে দেশের থানা কোর্টে যাওয়া যেত এবং দেশের প্রচলিত আইনের মাধ্যমে তাদের শাস্তির আওতায় আনা যেতো। আইন সবাই জন্য সমান, কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়, কিন্তু তা না করে এভাবে আইন নিজের হাতে তুলে নিয়ে গণমাধ্যম কর্মীর উপর হামলা কোনভাবেই কাম‍্য নয়। দূঃখজনক।

রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব সভাপতি শফিক আজাদ জানায়, রত্নাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল হুদার ছেলে তাহসিনের নেতৃত্বে দুই সহোদর সাংবাদিক হামলা শিকার হয়েছে। তাদের উপর দেশীয় অস্ত্রধারী ৩০/৩২ জন যুবক অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় তিনি অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনারও দাবী জানান।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উখিয়া থানার অফিসার আহাম্মদ সঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ঘটনার বিষয়ে কেউ আইনী সহযোগিতা চাইলে তাকে আইনগত সহায়তা প্রদান করা হবে।

উল্লেখ্য, শরীফ আজাদ রিপোর্টাস ইউনিটি উখিয়ার সভাপতি ও অনলাইন গণমাধ্যম চট্টগ্রাম ২৪ এর সম্পাদক ও প্রকাশক এবং তার ভাই জসিম আজাদ দৈনিক ভোরের কাগজের উখিয়া প্রতিনিধি ও উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক।