ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২

রোহিঙ্গাদের শীর্ষনেতা মুহিবুল্লাহ হত্যাকান্ডের ফতুয়াদাতা “আরসা নেতা” জকোরিয়া আটক

প্রকাশ: ২০২২-০৩-০৬ ১৪:৩৬:৪১ || আপডেট: ২০২২-০৩-০৬ ১৪:৩৬:৪১

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের শীর্ষনেতা মাষ্টার মুহিবুল্লাহ হত্যাকান্ডের ঘটনায় ফতুয়াদাতা ওলামা শাখার প্রধান কমান্ডার জকোরিয়া (৫৫)কে আটক করেছে ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ান (এপিবিএন)। আটককৃত ব্যক্তিকে উখিয়া থানায় সোর্পদ্দ করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে দীর্ঘ চার মাস পর্যন্ত পলাতক ছিল সে।

আটক ব্যক্তি উখিয়ার কুতুপালং লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প-১ ইষ্ট এর বাসিন্দা আব্দুল করিমের ছেলে। শনিবার (৫ মার্চ)রাতে ক্যাম্প-২ এর ওয়েষ্ট ব্লক সি-৭ এ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালে মিয়ানমার থেকে এদেশে পালিয়ে আসে জকোরিয়া। তারপর উখিয়ার বেশ কয়েকটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবস্থান নেয়। পরে সুয়োগ বুঝে মিয়ানমারে চলে যান। ২০১৭ সালে মিয়ানমারের সামরিক জান্তার নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে পুরে পরিবার নিয়ে আবারো এদেশে পালিয়ে আসে। এরপর উখিয়ার লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়। ২০১৯ সালে ফতোয়া বিভাগের দায়িত্ব পান।

২০২০ সালে কথিত আরসার উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকার ওলামা শাখার প্রধান কমান্ডার হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে দায়িত্ব পালন করে ছিল।

রোহিঙ্গাদের অধিকার আদায়ের শীর্ষ নেতা (এআরএসপিএইচ) এর সাবেক প্রধান নিহত মাষ্টার মুহিবুল্লাহর সাথে মতোবিরোধ ছিল তার। রোহিঙ্গা নেতা হত্যাকান্ডের পর থেকে উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা শিবির গুলোতে সাঁড়াশি অভিযান শুরু হলে সে আতœগোপনে চলে যায়। আটক জকোরিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের দুষ্কৃতিকারীদের মদদদাতাদের শীর্ষ পরামর্শক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

এ ব্যাপারে ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ান (এপিবিএন) এর পুলিশ সুপার মোঃ নাঈমুল হক বলেন, আটককৃত ব্যক্তিকে উখিয়া থানায় সোর্পদ্দ করা হয়েছে। দীর্ঘ চারমাস পলাতক ছিলেন।

এ ব্যাপারে উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আহমেদ সন্জুর মোরশেদ বলেন, রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যাকান্ডের ঘটনায় একজন আসামীকে আটক করা হয়। ধৃত আসামীকে কক্সবাজার জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।