ঢাকা, রোববার, ২৯ মে ২০২২

উখিয়ায় নিখোঁজের ৫ দিনপর ব্যবসায়ী জসিমের লাশ উদ্ধার

প্রকাশ: ২০২২-০২-১৫ ১৮:৩৮:৩০ || আপডেট: ২০২২-০২-১৫ ২২:১৫:৩৯

 

পলাশ বড়ুয়া:
কক্সবাজারের উখিয়ায় নিখোঁজ হওয়ার ৫ দিন পর ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিনের লাশের সন্ধান পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে। জসিমের কাছে থাকা কয়েক লাখ টাকার লোভে তাকে হত্যা করেছে দুষ্কৃতিকারীরা এমনটি ধারণা স্থানীয়দের। এ ঘটনার পর থেকে জসিমকে বহনকারী টমটম চালক এলাকায় নেই বলেও জানা গেছে।

মঙ্গলবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা ৬ টার দিকে পশ্চিম মরিচ্যা বাজারস্থ সৌদি প্রবাসী বদি আলমের মার্কেট থেকে নিখোঁজ ব্যবসায়ী জসিমের নিজস্ব গোডাউন থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মো: হোছন নামে একজন দুপুর ১২ টার দিকে পাশ্ববর্তী বিলে ঘাস কাটতে গেলে সেখানে একটা হাতুড়ি কুড়ে পায়।

এই খবরে অপরাপর স্থানীয়রা তার গোডাউনের দিকে এগিয়ে গেলে লাশের দূর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। এরপর গোডাউনের তালা ভেঙে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এর আগে নিখোঁজ স্বামী জসিম উদ্দিনের সন্ধান পেতে উখিয়া থানা পুলিশ ও র‌্যাব-১৫ এর সহযোগিতা চেয়ে লিখিত আবেদন করেন দুই সন্তানের জননী জোসনা আকতার।

সরেজমিনে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে উখিয়া উপজেলা হলদিয়াপালং ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পশ্চিম মরিচ্যা এলাকার বাসিন্দা ছলিম উল্লাহর ছেলে জসিম উদ্দিন (৩৫) মরিচ্যাবাজারস্থ নাঈমা এন্টারপ্রাইজ নামীয় ডিলার ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। ঘটনার দিন ১০ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১২টার দিকে সে মরিচ্যা বাজার এলাকা থেকে সে নিখোঁজ হয়।

এ ব্যাপারে জসিম উদ্দিনের স্ত্রী জোসনা আকতার কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার স্বামীর সাথে কারো বিরোধ নেই। ঘটনার দিন রাত ১১টার দিকে স্বামীর সাথে ফোনে কথা হলে কিছু বাজার নিয়ে আসার জন্য বলি। পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকেও বাড়ী না ফেরায় পুনরায় মোবাইলে চেস্টা করলে তার ব্যবহৃত ০১৮৮১২২৫৩২২ ফোন নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। সারারাত না ফেরায় ভোর পৌনে ৫টার দিকে পরিবারের লোকজনসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখি অফিস ও গোডাউনে তালা লাগানো ছিল। আমি কাকে নিয়ে বাঁচবো।

উখিয়ায় নিখোঁজের ৫ দিনপর ব্যবসায়ী জসিমের লাশ উদ্ধার

এ ব্যাপারে তার চাচা ও পার্শ্ববর্তী ব্যবসায়ী মৃত হাবিব উল্লাহর ছেলে শামশুল আলম বলেন, সে অনেক কষ্ট করে তার ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। কোম্পানী গুলোর সাথেও তার লেনদেন ভালো ভাবে চলছে। ঘটনার দিন রাত ১০টার দিকে তার আমার শেষ কথা হয়।

নিখোঁজ জসিমের খালাত ভাই জয়নাল উদ্দিন বলেছেন ভিন্ন কথা, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে সে মেম্বারপ্রার্থী মঞ্জুরের পক্ষে কাজ করায় প্রতিপক্ষ জসিমকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেছে। যা জসিম তাকে বলেছে।

স্থানীয় একটি বিশ্বস্থ সূত্র জানিয়েছেন, তাকে নিয়মিত বহনকারী টমটম চালক ঘটনার পর থেকে গা ঢাকা দিয়েছে। সে মরিচ্যা মধু ঘোনা এলাকার বাসিন্দা। তাৎক্ষনিক তার নাম জানা যায়নি।

অপর একটি সূত্রে জানা গেছে ওই দিন জসিমের কাছে ৪/৫ লক্ষ টাকা গচ্ছিত ছিল।

এ ব্যাপারে হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী বলেন, যতটুকু জেনেছি জসিম উদ্দিন একজন শান্ত প্রকৃতির লোক। এটা নিশ্চয় পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। তিনি দ্রুত সময়ের মধ্যে হত্যাকান্ডে জড়িতদের শনাক্ত করে কঠোর শাস্তি দাবী করছি।

উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আহাম্মদ সঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, ব্যবসায়ী জসিম নিখোঁজ সংবাদের পর থেকে পুলিশ কাজ করছিল। আজ খবর পেয়ে নিহতের সুরতহাল রিপোর্টের পর মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। অপরাধীদের চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কক্সবাজারের পুলিশ পরিদর্শক তৌহিদুল আলম বলেন, গত ১০ ফেব্রূয়ারি ব্যবসায়ী জসিম ব্যাংক থেকে ২ লাখ টাকা উত্তোলন করেন। তা ছাড়া ব্যবসায়ি হিসাবে তার কাছে আরও টাকা ছিল। প্রাথমিক ধারনা করা হচ্ছে টাকা লুটের জন্যই কৌশলে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এই বিষয়টিকে সামনে রেখে তদন্ত কাজ অব্যাহত রয়েছে।