ঢাকা, সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১

উখিয়ায় ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে কে কত ভোট পেয়ে নির্বাচিত

প্রকাশ: ২০২১-১১-১২ ১০:৫৬:০৮ || আপডেট: ২০২১-১১-১২ ১১:০২:০০

পলাশ বড়ুয়া ॥

উখিয়া উপজেলার হলদিয়াপালং একটি ইউনিয়ন ছাড়া বাকী ৪ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বেসরকারি ভাবে ফলাফল ঘোষণা করেছে উখিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিস।

বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সারাদেশের ন্যায় দ্বিতীয় ধাপে উখিয়ার পাঁচটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ হয়েছে।

তৎমধ্যে রাজাপালং ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী নৌকা প্রতীকে ১৭৮১০ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিটকতম প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী সাদমান জামী চৌধুরী ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন ১১৭৭৫ ভোট। আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজাহান পেয়েছে ১২৬ ভোট। ইসলামী আন্দোলনের মনোনীত হাতপাখা প্রতীকে হোছাইন আলি পেয়েছে ৩৪৫ ভোট।

পালংখালী ইউনিয়নে এম. গফুর উদ্দিন চৌধুরী ঘোড়া প্রতীক ৪৭২৩ ভোট পেয়ে তৃতীয় বারের মতো বেসরকারি ফলাফলে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে হ্যাট্টিক করেছেন। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী এড. এম.এ মালেক চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ৩৯৯৯ ভোট। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে আবুল মঞ্জুর পেয়েছে ১৩০২ ভোট। মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলী আহমদ পেয়েছে ২৭৮৭ ভোট। সে ইতোপূর্বেও নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করে পরাজিত হয়। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ হাতপাখা প্রতীক নিয়ে রাশেদুল আমিন পেয়েছেন ২৯১ ভোট। আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহাদত হোসেন পেয়েছে ৩০৭১ ভোট। সে গত দুই নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছিল।

রত্নাপালং ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের মনোনীত নুরুল হুদা নৌকা প্রতীকে ৭২৮৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রার্থী নুরুল কবির চৌধুরী ঘোড়া প্রতীক পেয়েছে ৬১৪০ ভোট। টেলিফোন প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহফুজ উদ্দিন বাবু পেয়েছে ৫৪ ভোট। ইসলামী আন্দোলনের মনোনীত হাত পাখা প্রতীক নিয়ে মোরশেদ আলম পেয়েছে ২৬৬ ভোট। আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: আব্বাস উদ্দিন পেয়েছে ১৭ ভোট।

জালিয়াপালং ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের মনোনীত এসএম ছৈয়দ আলম নৌকা প্রতীকে ৬৩৯৬ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছে। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বিএনপি ঘরানার স্বতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীক নিয়ে নুরুল আমিন চৌধুরী পেয়েছে ৫৯৩২ ভোট। ঘোড়া প্রতীকের বিএনপি ঘরানার আনোয়ার হোছাইন পেয়েছে ৪৯৮৯ ভোট। টেবিল ফ্যান প্রতীকে ছৈয়দ মোহাম্মদ সাদ্দাম হোছাইন পেয়েছে ৬২ ভোট। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত হাতপাখা প্রতীক নিয়ে নুরুল আমিন পেয়েছে ২০২ ভোট। মোটর সাইকেল প্রতীকের মো: মনিরুল আলম পেয়েছে ১৫১৯ ভোট। আনারস প্রতীক নিয়ে শফিকুল হুদা পেয়েছে ৩৫৫৭ ভোট। রজনী গন্ধা প্রতীক নিয়ে রফিকুল হুদা পেয়েছে ২৩ ভোট। অটোরিক্সা প্রতীক নিয়ে শাহ আমিন চৌধুরী পেয়েছে ১৭ ভোট।

হলদিয়াপালং ইউনিয়নে একটি কেন্দ্রে ফলাফল স্থগিত থাকায় ফলাফল চুড়ান্ত হয়নি এমনটি জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিজাম উদ্দিন আহমেদ। ওই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত হওয়ার পূর্বে কাষ্টিং ভোট গণনার পরে ফলাফল নির্ণয় করা হবে বলেও তিনি জানান।

তবে ৮টি কেন্দ্রের প্রাপ্ত ফলাফলে অধ্যক্ষ শাহ আলম এর নৌকা প্রতীকের চেয়ে ঘোড়া প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমরুল কায়েস চৌধুরী কয়েকশ ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে বলে সূত্রে জানা গেছে।