ঢাকা, সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১

শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভ মহালয়া পর্ব আনুষ্ঠানিকতা শুরু

প্রকাশ: ২০২১-১০-০৬ ২০:২০:০৩ || আপডেট: ২০২১-১০-০৬ ২০:২৯:৫২

সিএসবি২৪ ডেস্ক:

বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভ মহালয়া পর্ব অনুষ্ঠিত হয়েছে। চন্ডীপাঠ ও আবাহনী গান পরিবেশনের মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

বুধবার ভোর ৬টায় রাজধানীর ঢাকাসহ সারাদেশের মন্দিরে মহালয়া উপলক্ষ্যে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় ।

পুরাণমতে, এদিন দেবী দুর্গার আবির্ভাব ঘটে। এ দিন থেকেই দুর্গাপূজার দিন গণনা শুরু হয়। মহালয়া মানেই আর ৬ দিনের প্রতীক্ষা মায়ের পূজার। আর এই দিনেই দেবীর চক্ষুদান করা হয়।

আগামী ১১ অক্টোবর থেকে ষষ্ঠীপূজার মাধ্যমে দুর্গাপূজা শুরু হলেও মূলত কাল থেকেই পূজার্থীরা দুর্গাপূজার আগমণধ্বনি শুনতে পাবেন। দুর্গাপূজার এই সূচনার দিনটি সারা দেশে বেশ আড়ম্বরের সঙ্গে উদযাপিত হয়।

শুভ মহালয়ার মধ্য দিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু। এই দিনে কৈলাস থেকে মা দুর্গা পিতৃগৃহে আগমন করেন। দেশজুড়ে মন্দিরে দেবী দুর্গার আগমনী বার্তায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঘরে ঘরে উৎসবের আমেজ শুরু হয়েছে।

করোনার প্রাদুর্ভাব কমায় এবার উৎসবমুখর পরিবেশে শারদীয় দুর্গাপূজার প্রস্তুতি চলছে। তবে করোনা সংক্রমণ এড়াতে গত বছরের মতো এবারও সব মন্ডপে বাড়তি সতর্কতা থাকবে। স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলবে পূজা অর্চনা। দেশজুড়ে প্রায় ৩২ হাজার ১১২টি পূজামন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

বাঙালি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে মহিষাসুরমর্দিনী দেবী দুর্গা সমস্ত অশুভ শক্তি বিনাশের প্রতীক রূপে পূজিত। মহামায়া অসীম শক্তির উৎস। পুরাণ মতে, মহালয়ার দিনে, দেবী দুর্গা মহিষাসুর বধের দায়িত্ব পান। শিবের বর অনুযায়ী কোন মানুষ বা দেবতা কখনও মহিষাসুরকে হত্যা করতে পারে না। ফলত আসীম ক্ষমতাশালী মহিষাসুর দেবতাদের স্বর্গ থেকে বিতারিত করে এবং বিশ্ব বহ্মান্ডের অধীশ্বর হতে চায়।

ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও শিব ত্রয়ী সন্মিলিত ভাবে ‘মহামায়া’ রূপে অমোঘ নারীশক্তি সৃষ্টি করলেন এবং দেবতাদের দশটি অস্ত্রে সুসজ্জিত সিংহবাহিনী দেবী দুর্গা ৯ দিনব্যাপি যুদ্ধে মহিষাসুরকে পরাজিত ও হত্যা করেন ।

মহালয়ার আর একটি দিক হচ্ছে এই মহালয়া তিথিতে যারা পিতৃ-মাতৃহীন তারা তাদের পূর্বপূরুষের স্মরণ করে তাদের আত্মার শান্তি কামনা করে অঞ্জলি প্রদান করেন। সনাতন ধর্ম অনুসারে এই দিনে প্রয়াত আত্মাদের মর্ত্যে পাঠিয়ে দেয়া হয়। প্রয়াত আত্মার যে সমাবেশ হয় তাকে মহালয়া বলা হয়। মহালয় থেকে মহালয়া। পিতৃপক্ষের ও শেষদিন এটি ।

মহালয়া উপলক্ষে বুধবার ঢাকার স্বামীবাগস্থ শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী আশ্রম ও মন্দির প্রাঙ্গণে পরিচালনা পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত অসহায় মানুষের মাঝে বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংসদ সদস্য এবং আশ্রম ও মন্দির পরিচালনা পরিষদের সভাপতি পংকজ দেবনাথ। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক বিষ্ণু পদ ভৌমিক, সদস্য মৃত্যুঞ্জয় দাস, রবিন মুখার্জী এবং প্রধান পুরোহিত অজিত চক্রবর্তী উপস্থিত ছিলেন।