ঢাকা, বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১

উখিয়ায় সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের অব্যবস্থাপনায় গ্রাহক ভোগান্তি চরমে, নষ্ট হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট

প্রকাশ: ২০২১-০৯-১৯ ১৪:০৪:৪৭ || আপডেট: ২০২১-০৯-১৯ ১৪:০৪:৪৭

 

গফুর মিয়া চৌধুরী, উখিয়া:
কক্সবাজারের উখিয়ায় সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের অব্যবস্থাপনায় গ্রাহক ভোগান্তি চরম পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। তাদের অবহেলার কারণে নষ্ট হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র।

অভিযোগ উঠেছে, সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের কক্সবাজার অফিসের কর্মকর্তা -কর্মচারীদের বিরুদ্ধে দায়িত্ব পালনে চরম ব্যর্থতার পাশাপাশি উখিয়ার ডাক সমুহ যথাযথ ভাবে পৌঁছাতে পারছে না। যার ফলে প্রতিমাসে ব্যাংক, বীমা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

অথচ দেশের রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন বিভাগ, জেলা, উপজেলা থেকে মালামাল ও অফিসিয়াল ডকুমেন্ট চড়া দামে ঠিকই বুকিং নিচ্ছে।

এক বীমা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস এক সময়ে ভাল সেবা দিলে ও এখন সেই অবস্থা আর নেই। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ রয়েছে। তারা গ্রাহকদের ডকুমেন্ট ঠিক ভাবে পোঁছাতে ব্যর্থ হচ্ছে। গ্রাহকদের সাথে দুর্ব্যবহার, অসৎ আচরণ, মালামাল নষ্ট করে ফেলা, গুরুত্বপুর্ণ ডকুমেন্ট মাসের পর মাস ফেলে রেখে নষ্ট করে ফেলাসহ অভিযোগের পাহাড় তাদের বিরুদ্ধে।

কয়েকজন সাংবাদিক জানিয়েছেন, ২০১৭ সালে আগস্ট পরবর্তী মিয়ানমার থেকে উখিয়ায় লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। এরপর থেকে কুরিয়ার সার্ভিসের সেবার চেয়ে ব্যবসায়িক মানসিকতা বেড়ে গেছে। যেহেতু উখিয়া-টেকনাফে হাজার হাজার দেশি বিদেশী নারী পুরুষ রোহিঙ্গা ক্যাম্প সমুহে চাকরী করছে। রয়েছে শতাধিক দেশি-বিদেশী এনজিও। ফলে ডাক আসা যাওয়া ও পাঠানোর চাহিদা বেড়ে গেছে।

এতে মানুষের কাছ থেকে অতিরিক্ত সুবিধা আদায় করছে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস। তারা অতিরিক্ত টাকা আদায়, মানুষকে হয়রানী, ঠিকভাবে ডকুমেন্ট ও মালামাল ডেলিভারী না দিয়ে নষ্ট করে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অথচ কুরিয়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ এসবের ব্যাপার কোন ব্যবস্হা নিচ্ছে না।

অনেক ডকুমেন্ট সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস কক্সবাজার আলী জাহাল জেলা অফিসে আটকে রেখে নষ্ট করে ফেলেছে এমনটি অভিযোগ করেছেন চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের উখিয়া অফিস প্রধান।

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি হসপিটালের এমবিবিএস ডাক্তার বিসি বড়ুয়া বলেন, তাঁর উখিয়ার বালুখালী হসপিটালের জন্য প্রেরিত ডকুমেন্ট ও মালামাল অনেক বিলম্বে ডেলিভারী দিতে গিয়ে নষ্ট করে ফেলেছে। আর উখিয়া থেকে ডকুমেন্ট পাঠাতে চাইলে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে।

চার্টার্ড লাইফ কক্সবাজার জোনের প্রধান ও এএসএম মোস্তাক আহামদকে অভিযোগ করে বলেন, ঢাকা থেকে নিয়মিত পাঠানো ডকুমেন্ট কক্সবাজার আলি জাহাল অফিস ঠিক ভাবে চার্টার্ড লাইফের উখিয়া অফিসে পৌঁছাতে পারে না। গত আগষ্ট মাসের ডকুমেন্ট আমার উখিয়ার ব্রাঞ্চ অফিস এখনো পর্যন্ত পায়নি।

সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের এমন অব্যবস্হাপনার বিষয়ে জানতে চাইলে সংযোগ না পাওয়ায় কক্সবাজার অফিসের কারো বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করতে উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন শত শত ভুক্তভোগী।