ঢাকা, রোববার, ২৪ অক্টোবর ২০২১

চট্টগ্রামে তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী হামলার শিকার হলেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানসহ ১৩ জন

প্রকাশ: ২০২১-০৬-১১ ২১:১৩:৪৮ || আপডেট: ২০২১-০৬-১১ ২১:১৩:৪৮

সিএসবি ডেস্ক:
চট্টগ্রামে নিজেদের জায়গায় কবরস্থানে সাইনবোর্ড সাঁটাতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যসহ ১৩ জন। আহতদের  চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার (১১ জুন) সকাল সাড়ে ১১টায় নগরীর ১৮ নম্বর পূর্ব বাকলিয়া ওয়ার্ডের আবদুল লতিফ হাটখোলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল আমিন বলেন, মারামারির খবর শুনে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে ফোর্স পাঠানো হয়েছে। আমাদের ফোর্স যাওয়ার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

চমেক হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, আহত ১৩ জনের মধ্যে ৪ জন গুলিবিদ্ধ। এরা হলেন মো. মাসুদ (২৮), আবদুল্লাহ কায়সার (৩৯), মো. মুরাদ (২৫) ও মো. ফয়সাল (২৮)। গুলিবিদ্ধ আব্দুল্লাহ কায়সার মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও চাকসুর প্রথম ভিপি মো. ইব্রাহীমের সন্তান। দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে আহতরা হলেন জাহাঙ্গীর (৪২), মান্নান (৩৯), শহিদুল্লাহ (৩৮), মো. তৈয়ব (২৮), জয় (১৪), রিয়াজ উদ্দিন (২০), শাহাব উদ্দিন শাওন (২৫), মো. আসিফ (২৪) ও সামাদ (২২)।

গুলিবিদ্ধ আব্দুল্লাহ কায়সারের ভাই সাইফুল্লাহ মাহমুদ জানান, ওই কবরস্থান আমাদের পূর্বপুরুষ এলাকার মানুষের জন্য নিজের জায়গায় দান করে গেছেন। কবরস্থানের সাইনবোর্ডটি জরাজীর্ণ হয়ে যাওয়ায় শুক্রবার সকালে আমরা নতুন সাইনবোর্ড লাগাতে গেলে চট্টগ্রাম নগর পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ইয়াকুব তার দলবল নিয়ে হামলা চালায়। এতে ১৩ জন আহত হয়েছে।

এদিকে হামলার ছবিতে তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ইয়াকুবের অবস্থান দেখা গেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সন্ত্রাসী ইয়াকুব ও তার বাহিনী ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা করে চাঁদার বিনিময়ে এই কবরস্থানের জায়গা বিক্রি করত।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা না হলেও হামলাকারীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে বলে জানান ওসি রুহুল আমিন।- সূত্র মহানগর নিউজ।