ঢাকা, সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২

শীলখালীতে অস্ত্র মামলার আসামী আজিজ উল্লাহ বেপরোয়া

প্রকাশ: ২০২০-১০-১৯ ১৯:৩৪:৫৫ || আপডেট: ২০২০-১০-১৯ ১৯:৩৪:৫৫

সংবাদদাতা ॥
কক্সবাজারের ক্রাইম জোন নামে খ্যাত টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শীলখালী এলাকাটি বর্তমানে ত্রাসের রাজত্ব হিসাবে পরিনত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে কয়েকজন লোকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শীলখালী গ্রামের মৃত মনির আহম্মদের ছেলে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও অস্ত্র মামলাসহ একাধিক মামলার আসামী আজিজ উল্লাহ একটি সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী গঠন করার পাশাপাশি কমিনিউটি পুলিশের সভাপতি পদের ক্ষমতার অপব্যবহার করে এলাকার নিরহ লোকজনকে মিথ্যা সাজানো মামলার ভয়ভীতি প্রদর্শন করে অনৈতিক সুবিধা ভোগ করছে বলে ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন।

শুধু তাই নয়, সে এলাকায় এত যে, বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলারমত না, রোববার বিকাল ৫ টার দিকে তার বড় বোন রেহেনা আক্তার তার প্রাপ্ত পৈত্রিক সম্পত্তির দাবী নিয়ে ছোট ভাই আজিজ উল্লার নিকট পৌছলে ওই সময় আজিজ উল্লাহ ক্ষিপ্ত হয়ে তার লেলিয়ে দেয়া সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তাকে হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে মাঠিতে ফেলে দেয়। শোর চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এসে পার্শ্ববর্তী হাসপাতালে ভর্তি করেন বলে জানান রেহেনা আক্তারের স্বামী নুরুল ইসলাম। উক্ত হামলার ঘটনায় এলাকায় থমেথমে অবস্থা বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছিুক এক ব্যাক্তি জানান, সম্প্রতি আজিজ উল্লাহ প্রকাশ্যে দিবালোকে শামলাপুর বাজারে গুলি করে মানুষ হত্যা চেষ্টাও করেছিল। ওই সময় অনেকজন গুরুতর আহতও হয়েছিল।

এ ঘটনায় টেকনাফ থানা পুলিশ বাদী হয়ে আজিজ উল্লাহকে প্রধান আসামী করে অস্ত্র মামলাসহ পৃথক দুটি মামলা রুজু করে। যার মামলা নাম্বার হচ্ছে, জি আর মামলা নাম্বার ১০৭/২০১৯, জিআর মামলা নং- ৩৫২/১৯ইং, জিআর মামলা নং- ৮৫/১৫ ইং, জিআর মামলা নং- ৫৪৭/১৬ইং।

উক্ত মামলায় সে আটক হয়ে দীর্ঘ দিন জেল হাজত শেষে জামিনে মুক্ত হয়ে ফের বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

টেকনাফ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হাফিজুর রহমান বলেন, অভিযোগ হাতে পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।