ঢাকা, বুধবার, ২৫ মে ২০২২

উখিয়া আ’লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী’র দুঃখ প্রকাশ করে ভিডিও বার্তা

প্রকাশ: ২০২০-১০-১২ ০১:১৬:০০ || আপডেট: ২০২০-১০-১২ ১১:৪৭:৫৮

উখিয়া আ’লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী’র দুঃখ প্রকাশ করে ভিডিও বার্তার হুবহু তুলে ধরা হলো :

বিছমিল্লাহির রাহমানির রাহিম
প্রিয় উখিয়াবাসী।
আসসালামু আলাইকুম/আদাব/নমস্কার।

আমি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, উখিয়া উপজেলা শাখা। চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, উখিয়া।

আমি আজ আপনাদের উদ্দেশ্যে দুটি কথা বলার জন্য হাজির হয়েছি। আকর্ষন করছি আপনাদের দৃষ্টি। আমার দীর্ঘ ২৯ বছরের রাজনৈতিক ও শিক্ষকতা জীবনে সবসময় মানুষের আত্মমর্যাদাকে সমুন্নত রাখতে চেষ্টা করেছি।

জীবনে কখনো কাউকে হেয় প্রতিপন্ন কিংবা মনে কষ্ট দেয়ার চেষ্টা করিনি। কিন্তু গত ৩রা অক্টোবর ২০২০ তারিখে, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের জরুরী বর্ধিত সভায় আমার বক্তব্যের একটি অংশ আমার রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত মূল্যবোধকে উপস্থাপন করেনি। যা পরে স্বয়ং আমাকেও বিব্রত করেছে।

সেদিনের সামগ্রিক বক্তব্যটি ছিলো সংগঠনের একতা ও ভাবমূর্তি সমূজ্জ্বল রাখার বৃহত্তর স্বার্থে এবং নেতাকর্মীদের অনুযোগের প্রেক্ষিতে।

দীর্ঘদিন ধরে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের কতিপয় সহযোদ্ধা সংগঠনের তৃণমূল নেতাকর্মীদের ম্যান্ডেট ও গঠনতন্ত্রকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্যারালাল কমিটির মাধ্যমে বারংবার বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করে আসছে। সাংগঠনিক শৃঙ্খলা রক্ষা ও ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানানোর পরও তাঁরা সংগঠনকে দুর্বল করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। তাঁরা এতোটাই উদ্যত ও উচ্ছৃঙ্খল যে কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশনাকে অমান্য করে প্যারালাল কমিটির কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

এই উচ্ছৃঙ্খল গ্রুপটির অন্যতম প্রধান মদদ দাতা হচ্ছে জনাব শাহ আলম। যিনি কথায় কথায় তাঁর শহীদ ভাই এটিএম জাফর আলম ও সাবেক কেবিনেট সচিব জনাব শফিউল আলম সাহেবের নাম ব্যবহার করে বিভিন্ন অন্যায় কাজ করে যাচ্ছেন। যা সংগঠনের নীতি আদর্শ পরিপন্থি।

আমিও একজন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান। মুক্তিযুদ্ধকে যখন কেউ ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করতে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেন, তখন প্রতিবাদ না করে পারিনা। আমি জনাব শাহ আলমের এই উচ্ছৃঙ্খল ও অন্যায় আচরণের প্রতিবাদ করতে গিয়ে বেশ কবার জনসমক্ষে বিরূপ আচরণের শিকার হয়েছি। এতে আমি মানসিকভাবে আহত। এ ধরণের এক পীড়াদায়ক সময়ে বক্তব্যের এক পর্যায়ে শহীদ এটিএম জাফর আলম সম্পর্কে অনাকাংখিত ভাবে একটি শব্দ প্রকাশ হয়ে পড়ে। যা নিয়ে একটি মহল অন্যায় ভাবে সুবিধা আদায়ের অপচেষ্টা করছে।

শহীদ এটিএম জাফর আলম সাহেব আমাদের মহান স্বাধীনতার ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও তাঁর আত্মত্যাগ অনস্বীকার্য। একজন শহীদ বিতর্কের উর্ধ্বে। তাঁকে নিয়ে রাজনীতি বা অপ্রয়োজনীয় বিতর্ক হতে পারে না।

আমি উখিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। একই সাথে শহীদ এটিএম জাফর আলম সাহেব পরিবারের সদস্যসহ অনেকেই আমাদের উপজেলা ও সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন। উখিয়া উপজেলা পরিষদ ও সংগঠনের প্রধান হিসেবে তাদের পরিবারের একান্ত একজন সুহৃদ হিসেবে আমি আমার দায়িত্ব পালন করে এসেছি সুদীর্ঘকাল ধরে।

একইভাবে শাহ আলম সহ তাদের পরিবারের সদস্যদের পক্ষ থেকে উখিয়ার মানুষ ও সংগঠন দায়িত্ব- কর্তব্যবোধ প্রত্যাশা করা কি অমুলক ছিল? তারা কি তাদের সে দায়িত্ব পালন করেছে ? সেটা আল্লাহকে সাক্ষী রেখে বুকে হাত দিয়ে কি বলতে পারবে? আওয়ামী লীগ সরকার কি তাদেরকে উজাড় করে সবকিছু দেয়নি? বিনিময়ে উখিয়ার আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী কিন্তু তাদের কাছ থেকে এহেন সংগঠন পরিপন্থি ভূমিকা মোটেও প্রত্যাশা করেনি।

তথাপি আমি উপলব্ধি করেছি আমার বক্তব্যের একটি অংশে অযাচিত ও মনোকষ্টকর ক’টি শব্দ চয়ন মনের অজান্তে হয়েছে। যা মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ এটিএম জাফর আলম সাহেবের পরিবার ও আমার রাজনৈতিক সহকর্মীদের মর্মাহত করেছে। যা নিয়ে আমি নিজেও অন্তর্দহনে ভূগছি।

এতে আমি ব্যক্তিগতভাবে দুঃখ প্রকাশ করে বিগত ৮ই অক্টোবর’২০২০ আমার ভ্রান্তি স্বীকার করে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় একটি বিবৃতি ও অভিমত ব্যক্ত করেছিলাম। ঐদিনের বক্তব্যের উক্ত অংশটি আমি পুনর্বার প্রত্যাহার করছি। এ নিয়ে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। একই সাথে শহীদ এটিএম জাফর আলম সাহেবের পরিবার ও আমার রাজনৈতিক সহকর্মীদের প্রতি বিষয়টি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ জানাচ্ছি।

পরিশেষে, এই মহান শহীদকে নিয়ে কোন বিতর্ক হোক, রাজনীতি হোক ও ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থে ব্যবহার হোক আমরা কেউই চাইনা। আশা করি আমার এই বক্তব্যের পর চলমান বিতর্কের পরিসমাপ্তি ঘটবে।

আসুন আমরা সকল ভেদাভেদ ভূলে মানবতার জননী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সামনের দিকে এগিয়ে চলি এবং দলকে সুসংহত করি।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। বাংলাদেশ চিরজীবি হউক।

বিনীত

অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী
চেয়ারম্যান
উখিয়া উপজেলা পরিষদ

সভাপতি, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ।

উখিয়া আ'লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী'র দুঃখ প্রকাশ করে ভিডিও বার্তা

Posted by csb24.com on Sunday, October 11, 2020