ঢাকা, সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২

কারাফটকে ওসি প্রদীপকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে আজ

প্রকাশ: ২০২০-০৮-১৮ ১২:১৮:৪১ || আপডেট: ২০২০-০৮-১৮ ১২:২২:৫৯


নিজস্ব প্রতিবেদক::

টেকনাফে পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় আজ কারাগারে থাকা ওসি প্রদীপকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে জানিয়েছেন তদন্ত কমিটির প্রধান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মিজানুর রহমান।

এর আগে সোমবার বরখাস্ত হওয়া দুই আসামি শামলাপুর পুলিশ ফাঁড়ির আইসি লিয়াকত আলী ও এসআই নন্দ দুলালকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি।

সূত্রে জানা গেছে সোমবার বেলা ১১টার দিকে কারাগারে থাকা ২ আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেন তদন্ত কমিটি। দুপুর বেলায় কিছুটা বিরতির পর সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ পর্যন্ত এ জিজ্ঞাসাবাদ চলে। তবে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের কোন ব্রিফ না করে কারাগার ত্যাগ করেন তদন্তকারী দল। কক্সবাজারের জেল সুপার মো. মোকাম্মেল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তদন্ত টিমে রয়েছেন কমিটির প্রধান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মিজানুর রহমান, সদস্য চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. জাকির হোসেন, কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহা. শাজাহান আলি ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রতিনিধি সদস্য লে: কর্নেল সাজ্জাদ।

রিমান্ডে থাকা ৭ আসামি হলেন-উপপরিদর্শক (এসআই) লিটন, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন ও আবদুল্লাহ আল মামুন এবং টেকনাফ থানায় পুলিশের করা মামলার ৩ সাক্ষী মো. নুরুল আমিন, নিজাম উদ্দিন ও মোহাম্মদ আয়াছ। আদালতের নির্দেশে গত শুক্রবার তাদেরকে রিমান্ডে নেয় র‌্যাব।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সিনহা। সিনহা তার পরিচয় দিয়ে তল্লাশিতে বাধা দিয়েছিলেন বলে দাবি করে পুলিশ। পুলিশ এ ঘটনায় মামলায় সিনহার দুই সঙ্গীকে আসামি এবং নূরুল আমিন, নিজাম উদ্দিন ও মোহাম্মদ আয়াছকে সাক্ষী করে।

ঘটনার পাঁচদিন পর সিনহার বোন ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করেন। সেই মামলায় পুলিশের মামলার তিন সাক্ষীকে আসামি দেখিয়ে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

পুলিশের মামলার তিন সাক্ষীসহ আর চার পুলিশ সদস্যকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন সিনহা হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যার ১৫-এর সহকারী পরিচালক এএসপি জামিনুল হক। শুনানি শেষে আদালত তাদের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। ওসি প্রদীপসহ অন্য তিন পুলিশ সদস্যের রিমান্ড আবেদন আদালত মঞ্জুর করলেও কারাগার থেকে র‌্যাব তাদের এখনও হেফাজতে নেয়নি। সবশেষ সোমবার সকালে এই দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি।