ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২

সিনহা হত্যাকান্ড : প্রদীপ-লিয়াকতসহ তিনজন ৭ দিনের রিমান্ডে, জামিন নাকচ

প্রকাশ: ২০২০-০৮-০৭ ০১:০৭:০৫ || আপডেট: ২০২০-০৮-০৭ ০১:১২:০২

সিএসবি২৪ ডেস্ক:
সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় টেকনাফের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলিসহ তিন আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

বৃহস্পতিবার রাতে কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক মো. হেলাল উদ্দিন র‌্যাবের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি করে সাত দিন মঞ্জুর করেন। তাদের সঙ্গে এসআই দুলাল রক্ষিতকে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

এ মামলায় আত্মসমর্পণ করা বাকি চার আসামি কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং এএসআই লিটন মিয়াকে জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন বিচারক।

মামলার বাকি দুই আসামি এসআই টুটুল ও কনস্টেবল মো. মোস্তফা এখনো পলাতক। তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দিয়েছেন আদালত।

গত ৩১ জুলাই খুন হওয়ার পর মেজর সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদী হয়ে ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে টেকনাফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গতকাল বুধবার মামলাটি দায়ের করেন। আদালতের আদেশ মতে টেকনাফ থানা একইদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে মামলাটি রুজু করে।

এরপর আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। আর এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির ১৪ ঘণ্টা পর চট্টগ্রামের দামপাড়া পুলিশ লাইন হাসপাতাল থেকে পুলিশের কাছে ধরা দিয়ে আত্মসমর্পণ করার কথা জানান টেকনাফ থানার প্রত্যাহারকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।

বিকেল ৫টার দিকে পুলিশী পাহারায় তাকে কক্সবাজারে নিয়ে আসা হয়। এ সময় শত শত উৎসুক জনতা সড়কের দুই পাশে ভিড় জমায়।

এর আগে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মামলার প্রধান আসামি ইন্সপেক্টর লিয়াকতসহ ছয় পুলিশ সদস্য আদালতে হাজির হন।

আসামী পক্ষের আইনজীবিদের জামিন আবেদন নাকচ করে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হেলাল উদ্দিন আত্মসমর্পণকারীদের জেলা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর র‌্যাবের পক্ষ থেকে রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার রাতে কক্সবাজার টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়ায় পুলিশের গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ।