ঢাকা, সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২

সম্মেলন দাবি করে স্ট্যাটাস দেয়ায় সভাপতির নেতৃত্বে হামলা, দু’ছাত্রলীগ নেতা ছুরিকাহত

প্রকাশ: ২০১৯-০৯-২৯ ১৭:৫১:৪৭ || আপডেট: ২০১৯-০৯-২৯ ১৭:৫১:৫৩

নিজস্ব প্রতিবেদক॥
কক্সবাজার কলেজ ছাত্রলীগের সম্মেলন দাবি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ায় সন্ত্রাসী হামালার শিকার হয়েছেন কলেজ ছাত্রলীগের দুই যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল্লাহ ও শাফিক। রোববার (৩০ সেপ্টেম্বর) বেলা একটার দিকে কলেজ ক্যাম্পাসের বিজ্ঞান ভবনের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় ক্যাম্পাসে আতংক সৃষ্টি করতে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিও বর্ষণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়।

আহত দুই ছাত্রলীগ নেতাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আহতদের মাঝে শফিকের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

কক্সবাজার সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি জাকির হোসনের নেতৃত্বে এ হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ করেছেন আহত ছাত্রলীগ নেতা ও সাধারণ কর্মীরা।

আহত ও ছাত্রলীগের সাধারণ কর্মীরা জানিয়েছেন, কক্সবাজার সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে বছর আগে। এ অবস্থায় সম্ভাব্য নেতৃত্বে আসতে আগ্রহীরা সম্মেলন দাবিতে স্বোচ্চার হই। শনিবার এ নিয়ে কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক শফিকসহ বেশ কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী তাদের ভেরিফাইড ফেইসবুকে সম্মেলনের দাবি করে স্ট্যাটাস দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি জাকির হোসেনের নেতৃত্বে ২০-৩০ জন বহিরাগত যুবক কলেজ ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে মো. আব্দুল্লাহ ও শফিককে উপর্যুপরি চুরিকাঘাত করে। এতে গুরুতর আহত হন শফিক ও আব্দুল্লাহ। অন্যান্য ছাত্রলীগ কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

আহত দুইজনই কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেনের অনুসারী বলে জানা যায়।

হামলার সত্যতা নিশ্চিত করে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সম্মেলনের দাবিটা তাদের অধিকার। কিন্তু তাই বলে সহযোদ্ধাদের উপর এভাবে হামলা চালানো লজ্জাজনক। রাজ্জাক নামে অপর এক কর্মীকে গুলি করেছে বলেও দাবি করেন তিনি।

তিনি বলেন, আমি বিষয়টি কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদককে জানিয়েছি। শুধু হামলার ঘটনা নয়, সভাপতি জাকিরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগও রয়েছে।

আব্দু রাজ্জাক নামে ছাত্রলীগ কর্মী জানিয়েছেন, শফিক এবং আব্দুল্লাহর উপর যখন হামলা চালানো হয় তখন তাদের উদ্ধার করতে গেলে আমাকেও গুলি করে সভাপতি জাকির। আমি পালিয়ে আত্মরক্ষা করেছি।

কক্সবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ একেএম ফজলুল করিম চৌধুরী বলেন, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতির হাতে দুইজন ছেলে আহত হয়েছে। এটি তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয় হতে পারে। আমি পুলিশকে জানিয়েছি।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি জাকির হোসেনের মুঠোফোনে বেশ কয়েকবার ফোন করা হলেও রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

কক্সবাজার মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মো. খায়রুজ্জামান বলেন, কলেজ ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষের খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাচ্ছি (বিকাল সাড়ে ৫টায়) । আগে কি ঘটেছে জানিনা। এখনো গন্ডগোল হচ্ছে খবর এসেছে, সেখানে গিয়ে বাকিটা জানাচ্ছি।

বিষয়টি জানতে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইশতিয়াক আহমদ জয়ের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হয়। সংযোগ না পাওয়ায় তার বক্তব্যও নেয়া সম্ভব হয়নি।