ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট ২০২২

জায়ানের জন্য প্রধানমন্ত্রী অঝোরে কেঁদেছেন

প্রকাশ: ২০১৯-০৪-২২ ২২:৩৪:২২ || আপডেট: ২০১৯-০৪-২২ ২২:৩৫:০৯

অনলাইন ডেস্ক: শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে সিরিজ বোমা হামলায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী (৮) নিহত হওয়ার খবরে সর্বত্র শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

রোববার (২১ এপ্রিল) রাতে এ খবর প্রকাশের পর দল মত নির্বিশেষে শোকে স্তব্ধ হয়ে পড়ে সকল মানুষ। প্রাণপ্রিয় নেতার আদরের নাতি জায়ান চৌধুরীর মর্মান্তিক মৃত্যু দলের নেতাকর্মীদের বাকরুদ্ধ করে দিয়েছে।

জায়ানের বয়স হয়েছিলো মাত্র ৮ বছর। সাবেক মন্ত্রী শেখ সেলিম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বোনের ছেলে। সেই সূত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুপাতো ভাই শেখ সেলিম। তাই ছোট্ট জায়ান প্রধানমন্ত্রীরও নাতি।

জায়ানের সঙ্গে পারিবারিক নানা অনুষ্ঠান ছাড়াও বিভিন্ন সময় দেখা হতো প্রধানমন্ত্রীর। তাকে দাদু বলে ডাকতো শিশু জায়ান। আদুরে জায়ান প্রধানমন্ত্রীকে দেখলেই জড়িয়ে ধরতো। বর্তমানে রাষ্ট্রীয় সফরে ব্রুনাই থাকা প্রধানমন্ত্রী চোখের পানি আটকে রাখতে পারেননি। মায়াবী এই শিশুটির জন্য অঝোরে কেঁদেছেন।

শ্রীলঙ্কায় সিরিজ হামলার পরপরই প্রধানমন্ত্রী এর তীব্র নিন্দা জানিয়ে শোক প্রকাশ করেছিলেন। এর কিছুক্ষণ পরই তিনি জানান, তার পরিবারের সদস্যরাও এই ঘটনায় আক্রান্ত। শুরুতে শিশু জায়ান নিখোঁজ ছিল। কিন্তু পড়ে জানা যায় যে তার মৃত্যু হয়েছে। এই খবরটি শোনার পরই প্রধানমন্ত্রী বাকরুদ্ধ হয়ে হয়ে পড়েন। আবেগাপ্লুত হয়ে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন বলেও জানা যায়।

শেখ সেলিমের বনানীস্থ ২/এ রোডের ৯ নং বাসভবনে চলছে শোকের মাতম। দেশের বিভিন্ন স্তরের মানুষ সমবেদনা জানানোর জন্য সেখানে আসছে।

উল্লেখ্য, রোববার (২১ এপ্রিল) শ্রীলঙ্কার প্রধান প্রধান গির্জা ও হোটেলে সিরিজ বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। শেখ সেলিমের মেয়ে, জামাতা ও তাদের দুই বাচ্চা শ্রীলঙ্কায় ভ্রমণে গিয়েছিলেন। সকালে যখন হামলা চালানো হয় তখন শেখ সেলিমের জামাতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স ও নাতি জায়ান একটি হোটেলে নাস্তা করছিল। হামলার পর মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্সকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেয়া হয়। কিন্তু শিশু জায়ানের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

প্রধানমন্ত্রী নিজেই এ খবর জানিয়ে বলেন যে, ‘বাচ্চাটার এখনও কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছে না যে সে কোথায় আছে। আপানারা একটু দোয়া করেন, যেন ওকে পাই।’ কিন্তু সবার দোয়া বিফল করে দিল ছোট্ট জায়ান। তার মৃত্যুতে এখন ব্রুনাই সফররত প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের মাঝে শোক বিরাজ করছে।