ঢাকা, বুধবার, ২৫ মে ২০২২

হাজিরা দিয়ে ডাক্তাররা যায় কোথায় ? তা নজরে রাখার নির্দেশ- দুদক কমিশনারের

প্রকাশ: ২০১৯-০৪-১৮ ১৬:২৬:২৫ || আপডেট: ২০১৯-০৪-১৮ ১৬:২৬:৩৭

নিজস্ব প্রতিবেদক:

‘জনতাই শক্তি রুখবে দুর্নীতি’-এ স্লোগানকে সামনে রেখে কক্সবাজারে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৮এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে কক্সবাজার সদর উপজেলার এড.সাহাব উদ্দীন মিলনায়তনে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত ও গীতা পাঠের মধ্য দিয়ে এই গণশুনানী শুরু হয়ে বেলা ১টা নাগাদ শেষ হয়। কক্সবাজারে এই প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিক দুর্নীতির গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন ও জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির কক্সবাজারের আয়োজনে এ গণশুনানীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশন-(দুদক) কমিশনার (তদন্ত) এ.এফ.এম আমিনুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আশরাফুল আফসার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ইকবাল হোসেন, জেলা দুর্নীতি দমন প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরসহ সংশ্লিষ্টরা।

গণশুনানীর শুরুতে সদর হাসপাতালে চিকিৎসা বঞ্চিত সেবা প্রার্থীদের অভিযোগে উত্তপ্ত হয়ে উঠে অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ। সাম্প্রতিক ভুল চিকিৎসা রোগীর মৃত্যু যথাযথ সমস্যা সামাধান না করে উল্টো ডাক্তাদের আন্দোলন নিয়ে প্রশ্ন তুলে উপস্থিত সেবা বঞ্চিতরা।

শুরুতে জয়নাল আবেদীন নামের এক ব্যক্তি অভিযোগ করেন, সদর হাসপাতেলে বেশ কয়েকবার গিয়েও তিনি চিকিৎসা পাননি। ডাক্তাররা তার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে হাসপাতাল ত্যাগ করতে বাধ্য করেছেন।

আরেক অভিযোগকারী নাজিম উদ্দীন বলেন, কথায় কথায় সদর হাসপাতালের ধর্মঘটের কারণে দুই সপ্তাহে ২০জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসাসেবা প্রার্থীদের ধরে মারধর করে জেলে পাঠিয়েছে ডাক্তাররা।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, রোগীর স্বজনদের বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা দেয়া হয়েছে। সদর হাসপাতালে খাবারের মানও খুবই নিম্ন মানের। দেখভালের কেউ যেন নেই।

হাসপাতালের অনিয়মের বিষয়ে অভিযোগ নিয়ে দুদকের গনশুনানীতে অভিযোগকারীদের প্রতিউত্তরে কমিশনার (তদন্ত) এ.এফ.এম আমিনুল ইসলাম বলেছেন, আমি দেশের অন্তত ২৫টি সরকারী হাসপাতাল গিয়েছি। এসব হাসপাতালে ব্যাপক অনিয়মে ভরপুর। সরকারি হাসপাতালগুলোর কেন এমন দশা?

তিনি বলেন, সকালে হাসপাতালে হাজিরা দিয়ে ডাক্তাররা কোথায় যায়? তা নজরে রাখার নির্দেশ দেন। দুদক কমিশনার কক্সবাজার সদর হাসপাতালে সৃষ্ট জটিলতা দ্রুত সমাধান করার নির্দেশ দেন।

উত্তর পর্বে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ বিনয় সন্তোষজনক উত্তর দিতে না পারায় উপস্থিত সবার মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করে।

গণশুনানীতে কক্সবাজার সদর উপজেলা ভূমি অফিস, জরীপ অফিস, সাব রেজিস্টার অফিস, পল্লীবিদ্যুৎ অফিস, হিসাবরক্ষণ অফিস, পিআইও অফিস, সমবায় অফিস, সমাজসেবা অফিস, যুব উন্নয়ন অফিস, প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসসহ আরো বেশ ক’টি সরকারি অফিসের কর্মকর্তারা গণশুনানীতে উপস্থিত থেকে গণশুনানীর বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর ও অভিযোগের সমাধান করবেন বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে।