ঢাকা, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

সংসদ নির্বাচনে মোটরসাইকেল নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশ: ২০১৮-১২-২৪ ১৮:৪৪:০৩ || আপডেট: ২০১৮-১২-২৪ ১৮:৪৪:০৩

অনলাইন ডেস্ক:

ঢাকার একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের ফটোসাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান আগে কয়েকটি জাতীয় নির্বাচন কাভার করেছেন, ছবি তুলেছেন। কিন্তু এবার তিনি বুঝতে পারছেন না, কতটা ভালোভাবে নির্বাচনটি তিনি কাভার করতে পারবেন।

তিনি বলছেন, ”একজন ফটোসাংবাদিক হিসাবে আমাদের অনেক স্থানে দ্রুত যেতে হয়, ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে ছবি তুলতে হয়। মোটরসাইকেল নিয়ে যত সহজে, ছোটখাট অলিগলিতে যেতে পারি, গাড়ি নিয়ে সেটা কখনোই সম্ভব না।”

“হয়তো আমি যেতে যেতেই ঘটনা শেষ হয়ে যাবে। তাই ফটোসাংবাদিকদের ক্ষেত্রে মোটরসাইকেল ব্যবহার করতে না পারলে কাজে খুব সমস্যা হবে।”

তার মতো চিন্তায় পড়েছেন বাংলাদেশের আরো অনেক সাংবাদিক ও সাধারণ মোটরসাইকেল ব্যবহারকারী।

কারণ বাংলাদেশে নির্বাচনের সময় টানা তিনদিন মোটরসাইকেল ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচন কমিশন এক ঘোষণায় জানিয়েছে, ৩০শে ডিসেম্বর মধ্যরাত থেকে শুরু করে দিবাগত মধ্যরাত পর্যন্ত বেবি ট্যাক্সি বা অটোরিকশা, ট্যাক্সি ক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পো, ইজিবাইক বা স্থানীয় পর্যায়ের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

তবে মোটরসাইকেলের ওপর খড়গ পড়ছে আরো বেশি। নির্বাচনের আগে পরে, অর্থাৎ ২৮শে ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখ মধ্যরাত ১২টা থেকে ১লা জানুয়ারি ২০১৯ পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ থাকছে। এমনকী সাংবাদিকরাও বিশেষ কোনো ছাড় পাবেন না।

যদিও প্রার্থী বা তাদের এজেন্ট, সাংবাদিক, পর্যবেক্ষকদের মতো পেশাদারি কাজে অন্য যানবাহনের জন্য বিশেষ স্টিকার দেয়া হবে কমিশনের পক্ষ থেকে, কিন্তু মোটারসাইকেল এই স্টিকার পাবে না।

সংকটে সাংবাদিকরা

নির্বাচন কমিশনের এই নিষেধাজ্ঞায় সবচেয়ে সমস্যায় পড়তে চলেছেন মাঠ পর্যায়ে কর্মরত সাংবাদিকরা।

পেশাগত কাজে ঢাকা এবং বাইরের শহর গুলোয় মাঠ পর্যায়ের সাংবাদিকদের বেশিরভাগই খবর সংগ্রহের কাজে মোটরসাইকেল ব্যবহার করেন। ফলে নির্বাচনের সময় এই বাহনটি ব্যবহারের সুযোগ না পেলে তা তাদের কাজ বড় ধরণের সমস্যা তৈরি করবে বলেই সাংবাদিকরা আশঙ্কা করছেন।

এর আগের নির্বাচনগুলোর সময় মোটরসাইকেলের জন্য কমিশনের পক্ষ থেকে অনুমতিসূচক স্টিকার বরাদ্দ করা হলেও, এবার নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দিয়েছে যে, মোটরসাইকেলের জন্য কোন স্টিকার দেয়া হবে না।

রাজশাহীর সাংবাদিক আনোয়ার আলী বলছেন, ”মোটরসাইকেলে করে যেকোনো ঘটনাস্থলে আমরা দ্রুত যাতায়াত করতে পারি। কোন খবর পেলে দ্রুত ছুটে যেতে পারি।”

“কিন্তু তিনদিন ধরে এই বাহনটি বন্ধ রাখা হলে আমাদের গতি নিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে। তখন কোন ঘটনার খবর জানা গেলে সঙ্গে সঙ্গে হয়তো সেখানে যেতো পারবো না। অন্যদের কথা শুনে লিখতে হবে। ”