ঢাকা, বুধবার, ২৫ মে ২০২২

রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনের পরিবেশ রাখাইনে এখনো গড়ে উঠেনি : রিচার্ড অলব্রাইট

প্রকাশ: ২০১৮-১১-১১ ১৯:১৬:৩৬ || আপডেট: ২০১৮-১১-১১ ১৯:১৬:৩৬

নিজস্ব প্রতিবেদক:
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিরাপদ, স্বেচ্ছামুলক এবং মর্যদাপূর্ণ হতে হবে উল্লেখ করে যুক্তরাষ্ট্রের আফ্রিকা ও এশিয়ার শরণার্থী ও প্রত্যাবাসন বিষয়ক উপ-সহকারি মন্ত্রী রিচার্ড অলব্রাইট বলছেন, মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন নিশ্চিতের পূর্বশর্ত রাখাইনে রোহিঙ্গা অবস্থানের পরিবেশ উন্নত করা। যা এখনো তৈরী হয়নি। সুষ্ট পরিবেশ তৈরী করতে রাখাইনে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ও বিভিন্ন দাতা সংস্থাকে অবাধে কাজ করার সুযোগ থাকতে হবে।

১১ অক্টোবর (রোববার) দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পার্শ্ববর্তী ইউএনএইচসিআর’র ট্রানজিট ক্যাম্প পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন।

গত সপ্তাহে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য সফরের অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য সহায়ক পরিবেশ এখনো মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে তৈরী হয়নি। সেখানে এখনো জাতীসংঘসহ আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাগুলোর প্রবেশাধিকার নেই। সেটি অবশ্যই তৈরী করতে হবে। তিনি এসব বিষয়গুলো বাস্তবায়নে মিয়ানমার সরকারের সাথে আলোচনা করেছেন বলেও জানান।

এর আগে মার্কিনমন্ত্রী বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের ঘুনধুমের কোনারপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। সেখানে প্রায় একঘন্টা অবস্থান করেন তারা। এ সময় তারা নো ম্যানস ল্যান্ডে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন।

পরিদর্শনের সময় যুক্তরাস্ট্রের সাহারয্যসংস্থা ‘ইউএসএআইডি’ বাংলাদেশ মিশনের প্রধান ডেরিক ব্রাউনসহ ক্যাম্পে নিয়োজিত বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

ডেরিক ব্রাউন বলেন, রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশের স্থানীয় জনগনের জীবন মান উন্নয়ন ও শিক্ষাখাতে সহায়তা করতে কাজ করছে ইউএসএআইডি।

এদিকে জাতীসংঘের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ক্রিস্টিন এস বার্গনা রোববার দ্বিতীয় দিনের মতো রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন। সকালে তিনি ইউএনএইচসিআর এর ট্রানজিট ক্যাম্প পরিদর্শন করেন এবং সেখানে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে প্রায় এক ঘন্টা কথা বলেন। পরে দুপুরে তিনি কুতুপালং ও বালুখালীর রোহিঙ্গ ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। তবে তিনি এসময় গণমাধ্যমকর্মীদের এড়িয়ে চলেন।