ঢাকা, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

সরকারের পদত্যাগের দাবিটি সংবিধানসম্মত নয় : কাদের

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-০১ ২২:০১:২৪ || আপডেট: ২০১৮-০৯-০১ ২২:০১:২৪

সরকারের পদত্যাগের দাবিটি সংবিধানসম্মত নয় : কাদের

সিএসবি ডেস্ক: নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে বর্তমান সরকারের পদত্যাগ এবং খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেছে বিএনপি। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘প্রথম বিষয়টি অর্থাৎ সরকারের পদত্যাগের দাবিটি সংবিধানসম্মত নয়। আর দ্বিতীয় বিষয়টি অর্থাৎ খালেদা জিয়ার মুক্তি আইনি বিষয়। তারা যদি মামলা মোকাবেলা করে আইনি প্রক্রিয়ায় বেগম জিয়াকে মুক্ত করে আনতে পারে, তাহলে ওয়েলকাম।’

শনিবার বিকেলে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সম্পাদক মণ্ডলীর সভা শেষে সাংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

কাদের বলেন, ‘সরকার যদি বাধা দিত, সরকার যদি বিচার বিভাগকে কোনো প্রকারে বিচার বিভাগকে প্রভাবিত করতে চাইতো তাইলে বেগম জিয়া এতগুলো মামলা থেকে জামিন পেত না। প্রায় ৩০টি মামলায় তিনি জামিন পেয়েছেন, সরকার যদি হস্তক্ষেপ করত তাহলে কিভাবে এসব মামলা থেকে জামিন পেল।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সেই মামলার জন্যও আপনারা আইনি লিগ্যাল ব্যাটলে যান। আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি সরকারের পক্ষ থেকে মামলার ব্যাপারে বেগম জিয়ার মুক্তির ব্যপারে আমাদের পক্ষ থেকে লিগ্যাল ব্যাটালে কোনো প্রকার বাধা, কোনো প্রকার হস্তক্ষেপ আমাদের পক্ষ থেকে হবে না।’

কাদের বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে এত ব্যর্থ অপজিশন, এত ব্যর্থ বিরোধী দল আসেনি। এই ব্যর্থতার জন্য বিএনপির টপ টু বটম সকল নেতার পদত্যগ করা উচিৎ।’

আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ এই নেতা বলেন, ‘ইভিএম নিয়ে বিএনপির কেন ভয় সেটা আমরা বুঝে ফেলেছি। বিএনপির ভয় হচ্ছে ইভিএমে ভোট হলে বিএনপি আর কেন্দ্র দখলের পুরোনো অভিযোগ আনতে পারবে না, ভোট জালিয়াতির কথা বলতে পারবে না। ভোট কারচুপির কথা বলতে পারবে না। বিএনপি আর পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়ার পুরোনো অভিযোগ আনতে পারবে না এ কারণেই বিএনপি ইভিএম চায় না।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি আমরা নিতে শুরু করেছি। এ মাসেই আমাদের কার্যক্রম পুরোপুরি শুরু করব। জোট নিয়েও আমরা পরোক্ষভাবে আলাপ আলোচনা করেছি। যারা আমাদের এত দিনের শরিক তাদের বিষয় নিয়ে কথা বলেছি। অনেকে আসতে চাচ্ছে তাদের সঙ্গেও আমরা কথা বার্তা বলতে শুরু করেছি।’

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘আমাদের জোটে আলাপ-আলোচনা চলছে, এ মাসের শেষ দিকে ফাইনাল সেপ দিবে। বেশিদূর গেলে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত যেতে পারে। আমাদের জোটের জন্য ৬৫ থেকে ৭৫ সিট ছেড়ে দেওয়ার চিন্তা ভাবনা আছে। এখানেও কথা আছে এটা কোনো বাইন্ডিং বিষয় না। ভালো প্রার্থী হলে আমরা এক্সসেপ্ট করব। উইনেবল প্রার্থীকে আমরা মনোনয়ন দিব। এলায়েন্সের যেকোনো দলেরই হোক আমরা তাদের এক্সসেপ্ট। প্রার্থী উইনেবল হলে আমরা মনোনয়ন দিবো। ’

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘দেশের সর্বশেষ অবস্থা এবং আমাদের সংগঠনের সাংগঠনিক অবস্থা নিয়ে আজকের সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় আলাপ আলোচনা করেছি। জেলা পর্যারয়ে তৃণমূলে আমাদের পার্টির অবস্থা নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। সামনে ট্রেনে করে উত্তরাঞ্চলে যাওয়ার আমাদের প্ল্যান রয়েছে। ’

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন— যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এনামুল হক শামীম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ।