ঢাকা, রোববার, ৩ জুলাই ২০২২

প্রধানমন্ত্রী আমাকে মনোনয়ন দিলে মাদক মুক্ত করে সরকারের ভাবমূর্তি পুন: উদ্ধার করব

প্রকাশ: ২০১৮-০৮-২৫ ২২:৩৯:৫৭ || আপডেট: ২০১৮-০৮-২৫ ২২:৪৯:৫৯

টেকনাফে গণসংযোগ কালে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী অধ্যক্ষ শাহ আলম

প্রধানমন্ত্রী আমাকে মনোনয়ন দিলে মাদক মুক্ত করে সরকারের ভাবমূর্তি পুন: উদ্ধার করব
গফুর মিয়া চৌধুরী::
উখিয়ার পর দ্বিতীয় দিনের মতো সীমান্ত শহর টেকনাফে এবার দিনব্যাপী গণসংযোগ করলেন উখিয়া-টেকনাফ থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী নতুন মুখদের মধ্যে শক্ত অবস্থানে থাকা হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বর্তমান সরকারের মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমের ছোট ভাই ও উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ শাহ আলম।

উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের দু:সময়ের কান্ডারী ও তৃণমূলের নেতাকর্মী বেষ্টিত এই নেতা ২৫ আগষ্ট (শনিবার) উখিয়ার হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদ চত্বর থেকে শত শত নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশাল গাড়ীর বহরে টেকনাফের শামলাপুর বাজারে পৌঁছলে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী মাষ্টার এম.এ মঞ্জুর তাঁকে বরণ করে নেন।

বাহারছড়া থেকে স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের সাধারণ মানুষের সাথে গণসংযোগ শেষে দুপুর ১টার দিকে টেকনাফস্থ শাপলা চত্বরে টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশরের নেতৃত্বে একদল আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাঁকে বরণ করে নেন।

টেকনাফ থেকে পথে পথে গণসংযোগ কালে হ্নীলায় পৌঁছলে আ’লীগ নেতাকর্মীরা তাঁকে বরণ করে নেন এবং আওয়ামী লীগের অপর এক মনোনয়ন প্রত্যাশী ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সাংসদ অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী’র বাস ভবনে মধ্যহ্ন ভোজ করেন অধ্যক্ষ শাহ আলম। গণসংযোগকালে তিনি সাধারণ মানুষের সাথে কোলাকুলিসহ খোলামেলা কথা বলেন।

সকাল ১০টায় শুরু হওয়া গণসংযোগকালে বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী মাষ্টার এম.এ মঞ্জুর, কক্সবাজার জেলা মুক্তিযোদ্ধা লীগের আহবায়ক জাফর আলম চৌধুরী। এ সময় তাঁর সাথে ছিলেন বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরের সাইফুল কোম্পানী, কবির কোম্পানী, কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলী আহমদ, উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান সাজু, টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতান আহমদ, অধ্যক্ষ শাহ আলমের সহধর্মীনি শিক্ষিকা জাহেদা সুলতানা, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহাবুব আলম চৌধুরী, হলদিয়াপালং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সার্জেন্ট (অব:) মাহমুদুল হক সিকদার, হলদিয়াপালং ইউনিয়ন কৃষকলীগের সভাপতি জয়নাল আবেদীন বাবুল, উখিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আবছার উদ্দিন শান্ত, হলদিয়াপালং ইউ.পি সদস্যদের মধ্যে আলী আহমদ, মোকতার আহমদ, ফজলুল করিম সওদাগর, সরওয়ার কামাল বাদশা, শামশুল আলম, মোহাম্মদ শাহজাহান, উখিয়া উপজেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউ.পি সদস্য (সংরক্ষিত) জয়নাব বেগম লিপি, সাজেদা বেগম বুলবুল, জেসমিন আকতার, হলদিয়াপালং ১নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি নজির আহমদ, আ’লীগ নেতা আলী আহমদ, যুবনেতা জসিম আহাম্মদ, শ্রমিক নেতা ছলিম উদ্দিন সেলিম প্রমুখ।

গণসংযোগ কালে অধ্যক্ষ শাহ আলম বলেন, সারাদেশে মাদক নিয়ে কক্সবাজারের দূর্নাম রয়েছে। আগামীতে আমি এই আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে উখিয়া-টেকনাফকে মাদকমুক্ত করব। এছাড়াও শিক্ষিত বেকার যুব-যুবতীদের চাকুরীসহ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করব ইনশাল্লাহ।

প্রধানমন্ত্রী আমাকে মনোনয়ন দিলে মাদক মুক্ত করে সরকারের ভাবমূর্তি পুন: উদ্ধার করব
তিনি বলেন, অবহেলিত এলাকার রাস্তাঘাট, ব্রীজ, কালভার্ট, সড়ক, নির্মাণ, হাট-বাজারের উন্নয়ন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ প্রতিটি গ্রামে বিদ্যুতায়ন নিশ্চিত করব। এলাকার মানুষের দোয়া ও ভালোবাসা নিয়ে বঞ্চিত মানুষের মুখে হাসি ফুটাতে জনগণের পাশে থাকবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

গণসংযোগ শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাকে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হলে অবহেলিত জনপদে দৃশ্যমান উন্নয়ন করব এবং সমাজ থেকে সন্ত্রাস ও মাদক মুক্ত করব।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, দলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা বর্তমান সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি’কে দীর্ঘ ১০ বৎসর ধরে সাংগঠনিক কোন কর্মকান্ডে পায়নি। বরং তিনি দলের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করে বিএনপি-জামায়াতের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখেছেন। যার ফলে নেতাকর্মীরা তাকে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

তাই আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে প্রার্থী পরিবর্তনের গণদাবী উঠেছে। তারই ধারাবাহিকতায় উখিয়া-টেকনাফের আসনটি জননেত্রী শেখ হাসিনা’কে উপহার দেওয়ার জন্য অধ্যক্ষ শাহ আলম যোগ্য নৌকার মাঝি বলে মনে করেন দলীয় নেতাকর্মীরা। তিনি আরো মনে করেন, তাঁকে মনোনয়ন দিলে উখিয়া-টেকনাফের দলীয় নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের জনতা তাঁর পক্ষে কাজ করবেন।

এর আগে ২৪ আগষ্ট (শুক্রবার) হলদিয়াপালং ইউনিয়নের উত্তর বড়বিল জামে মসজিদে জুমার নামাজ শেষে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সাথে আনুষ্ঠানিক গণসংযোগ ও মতবিনিময় করেন।