ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২

উখিয়ার কয়েকটি গ্রামের মানুষ পানিবন্দি, সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-২৬ ১৮:৪৫:১৪ || আপডেট: ২০১৮-০৭-২৬ ১৮:৪৫:১৪

উখিয়ার কয়েকটি গ্রামের মানুষ পানিবন্দি, সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন
নিজস্ব প্রতিবেদক:
টানা ভারী বর্ষণ ও জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় কক্সবাজারের উখিয়ায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে কয়েকটি গ্রামের মানুষ। এছাড়া বন্ধ রয়েছে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়ক যোগাযোগ। ঘর থেকে বের হতে না পেরে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে পানিবন্দি মানুষগুলো। এছাড়া পাহাড়ী ঢলে ভেঙ্গে গেছে লোকালয়ের রাস্তাঘাটও।

এদিকে উপজেলার বিভিন্নস্থানে পাহাড় ধ্বসে অনাকাংখিত মৃত্যু এড়াতে ঝুঁকিতে থাকা মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে যেতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে। এ অবস্থায় পানিবন্দি এলাকায় শুকনো খাবারের ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছেন ভোক্তভোগীরা।

আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, বুধবার (২৫ জুলাই ) যে পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে গত ২ বছরের কক্সবাজারে এমন বৃষ্টিপাত হয়নি। বুধবার ৪৬৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অফিস। আরো কয়েকদিন এ বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবীদ আব্দুর রাহমান। তিনি জানান, আরো কয়েকদিন হালকা ও মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাতের সম্ভবনা রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উখিয়া উপজেলার হলদিয়াপালং ইউনিয়নের গোঁরাচান মাতবরপাড়া, রুমখাঁপালং, জালিয়াপালং ইউনিয়নের লম্বরী, পাইন্যাশিয়া, রেজুরকুল, পশ্চিমরতœা, সাদৃকাটাসহ ৫ ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এসব পানিবন্দি মানুষগুলোর নাওয়া খাওয়া নিয়ে বিপাকে পড়তে হচ্ছে।

এদিকে পাহাড়ী ঢলে বুধবার বিকেল থেকে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কে। দক্ষিণ মিঠাছড়ির চেইন্দা এবং লিংকরোড় যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর এলাকায় অতিরিক্ত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এ সড়কে সম্পূর্ণ যোগযোগ বন্ধ থাকে।

এ ছাড়াও উখিয়া উপজেলার থাইংখালী ও বালুখালী পয়েন্টেও সড়কের উপর পাহাড়ী ঢলের পানি উঠে পড়ায় বৃহস্পতিবার সকাল থেকে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে। রাস্তা পানিতে নিমজ্জিত থাকায় উভয় পার্শ্বে শত শত যানবাহন আটকা পড়েছে। এ সময় দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত নারী এনজিও কর্মীরা।

পানিতে আটকা পড়া ট্রাক ড্রাইভার হামিদ সিকদার জানান, টেকনাফ বন্দর থেকে লোড নিয়ে ঢাকা যাওয়ার পথে চেইন্দা এসে ভোর থেকে বসে থাকতে হয়েছে।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: নিকারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া অতি বর্ষণের কয়েকটি গ্রাম পানিবন্দি রয়েছে। উখিয়ায় কোন ধরণের হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে কয়েকটি গ্রাম পানিবন্দি ছিল। পানি নেমে যাওয়ায় স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছে।