ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২

ফলোআপ : উখিয়া-টেকনাফে আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নিয়ে আলোচনার ঝড়

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-২৪ ১৯:১৬:২৬ || আপডেট: ২০১৮-০৭-২৪ ১৯:২৩:২৭

ফলোআপ : উখিয়া-টেকনাফে আ'লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নিয়ে আলোচনার ঝড়
গফুর মিয়া চৌধুরী, সিএসবি ২৪ ডটকম:
গত ২৩ জুলাই বহুল প্রচারিত অনলাইন সংবাদ মাধ্যম সিএসবি ২৪ ডটকমে “উখিয়া-টেকনাফ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌঁড়ঝাপ : এগিয়ে জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী” শিরোনামে তথ্যবহুল সংবাদ প্রকাশিত হলে সর্বত্রে আলোচনার ঝড় উঠেছে। দেশের সর্ব দক্ষিণে লাকী আসন খ্যাত উখিয়া-টেকনাফ (কক্সবাজার-৪) আসনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নাম এই সংবাদে স্থান পাওয়ায় আওয়ামী পরিবারে নতুন করে জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল সিএসবি ২৪ ডটকম দীর্ঘ অনুসন্ধান চালিয়ে আওয়ামী রাজনীতিতে উখিয়া-টেকনাফে কে হচ্ছেন জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী এর অনেকটা ইঙ্গিত দিচ্ছে এ প্রতিবেদনে। অতীতের রাজনীতির সমীকরণে দেখা গেছে, এ আসন থেকে যে দলের প্রার্থী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়, সে দলই সরকার গঠন করেছেন।

প্রাপ্ত তথ্যে মতে, গত ১৯৯১ সালে বিএনপি থেকে শাহজাহান চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক মোহাম্মদ আলীকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) সরকার গঠন করে।

একই ভাবে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ থেকে অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে বিএনপি’র প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরীকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে।
পরবর্তীতে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ থেকে আবদুর রহমান বদি নৌকার প্রতীক নিয়ে বিএনপি’র প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরীকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মহাজোট সরকার গঠন করে।

তৎপরবর্তী ২০১৪ সালে বিএনপি-জামায়াত নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় জাতীয় পার্টি থেকে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে প্রার্থী ছিলেন তাহা ইয়াহিয়া। তাঁকে পরাজিত করে আবদুর রহমান বদি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। অবশ্যই জাতীয় পার্টির প্রার্থী তাহা ইয়াহিয়া সকাল ১০টায় আনুষ্ঠানিক ভাবে নির্বাচন বর্জন করেন। অতীতের রেকর্ড থেকে বুঝা যায়, এ আসনে যে দলের প্রার্থী বিজয়ী হয়, সে দলই দেশ পরিচালনায় সরকার গঠন করে থাকেন।

এদিকে সিএসবি ২৪ ডটকমে উখিয়া-টেকনাফের নির্বাচনী হালচাল নিয়ে সংবাদ প্রকাশের পর আগামীতে উখিয়া-টেকনাফে সম্ভাব্য নতুন মুখের মধ্যে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী নামটি তৃণমুলের নেতাকর্মীদের মাঝে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে।

উখিয়া উপজেলা সদর রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের পরপর দুইবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী আওয়ামী রাজনীতিতে আসার পর থেকে নেতাকর্মীদের সাথে সুসম্পর্ক ও সমন্বয় থাকায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। তিনি তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সুখ-দু:খে পাশে থাকায় দলের দু:সময়ের কান্ডারী হিসেবে বেশ গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেন। এছাড়া জনগণের ভোটে বারবার জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হওয়ায় সাধারণ মানুষের কাতারেও তাঁর সুদৃঢ় অবস্থান রয়েছে।

আগামীতে উখিয়া-টেকনাফের অর্ধ ডজনের বেশি নতুন মুখ আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হওয়ার জন্য ইতোমধ্যে মাঠে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে। অনেকে নৌকার প্রতীক নিয়ে প্রার্থী হওয়ার জন্য ঢাকা কেন্দ্রীক যোগাযোগ রক্ষার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর নজর কাড়তে ব্যস্ত সময় পার করছে।

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদটি প্রকাশের পর থেকে নতুন করে হিসেব-নিকাশ শুরু হয় উখিয়া-টেকনাফের আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিক লীগসহ সকল সংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে। পাশাপাশি উখিয়া-টেকনাফের সাধারণ মানুষও এ আসনে একজন সৎ, যোগ্য, পরিচ্ছন্ন নেতাকে তাদের অভিভাবক হিসেবে পেতে চাই। এর সাথে যোগ হয়েছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে কে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি দলের জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে এবং উখিয়া-টেকনাফকে মাদকের আগ্রাসন থেকে রক্ষা করতে পারবে।

সব মিলিয়ে উখিয়া-টেকনাফে এখন সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌঁড়ঝাপ চোখে পড়ার মতো। এদের মধ্যে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদ থেকে দুই বারের নির্বাচিত বর্তমান চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক সাংসদ অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, বাংলাদেশ তাঁতীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরি সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহ আলম চৌধুরী রাজা, কক্সবাজার জেলা যুবলীগ সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর, হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ আলম, টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উখিয়া সদর রাজাপালং ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা রাসেল উদ্দিন সুজন বলেন, উখিয়া-টেকনাফ থেকে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমরা একজন নতুন মুখকে পেতে চাই। যিনি সব সময় নেতাকর্মীদের সাথে মিশে থাকে এবং দলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা যাঁর কাছে মূল্যায়িত হয় সে রকম একজন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দাবী জানাচ্ছি।
তিনি আরো বলেন, এই আসন থেকে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীকে মনোনয়ন দিলে পাশ করব বলে আশা করছি। দলের নেতাকর্মীদের সাথে কোন সম্পর্ক নেই এমন জন-বিচ্ছিন্ন কাউকে মনোনয়ন দিলে এ আসনে আওয়ামী লীগ পাশ করা কঠিন হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও ইউপি সদস্য ইকবাল বাহার এ প্রতিবেদককে বলেন, উখিয়া-টেকনাফ থেকে জননেত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দেবে তাঁর জন্য আমরা কাজ করব। দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের কাছে গ্রহণযোগ্য এমন কেউ মনোনয়ন পেলে নৌকা মার্কার বিজয় হবে অবশ্যই। নতুন মুখদের মধ্যে কাকে মনোনয়ন দিলে নৌকা পাশ করবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি নতুন মুখ হিসেবে রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীকে একজন জনপ্রিয় নেতা হিসেবে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দিলে বিপুল ভোটে উখিয়া-টেকনাফ আসন থেকে নির্বাচিত হবে বলে দৃঢ়কণ্ঠে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে উখিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: ইব্রাহীম আজাদ বলেন, আওয়ামী লীগের দলীয় সংসদ সদস্যরা স্ব-স্ব নির্বাচনী এলাকায় গেলে আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে শেখ হাসিনার উন্নয়নের চিত্র জনগণের কাছে তুলে ধরেন। সকল নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে সাংগঠনিক কর্মকান্ড ও দলীয় কর্মসূচীতে যোগ দেন। কিন্তু উখিয়া-টেকনাফের সাংসদের চিত্র ভিন্ন। আমাদের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি এলাকায় এলে দলের কোন নেতাকর্মীর সাথে কথা বলে না এবং ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন তো দূরের কথা দলীয় কোন কর্মসূচী পালন করতে দেখা যায়নি পাশাপাশি জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পর্কে জনগণের কাছে উপস্থাপন করতেও দেখিনি। উল্টো বিএনপি-জামায়াতের তথা-কথিত নেতাদের নিয়ে বৈঠক বসে। এ আসন থেকে একজন যোগ্যতা সম্পন্ন, পরিচ্ছন্ন ত্যাগী নেতাকে মনোনয়ন দিলে তাঁর জন্য নিবেদিত ভাবে ছাত্রলীগ কাজ করবে বলে তিনি জানান।