ঢাকা, রোববার, ৩ জুলাই ২০২২

শেখ হাসিনা সরকার সব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে কাজ করছে

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-০৪ ২১:০৭:২৮ || আপডেট: ২০১৮-০৭-০৪ ২১:০৭:২৮

রামুতে ধর্মীয় উপাসনালয়ে অনুদানের চেক বিতরণে উপজেলা চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম

শেখ হাসিনা সরকার সব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে কাজ করছে
খালেদ হোসেন টাপু, রামু
সারা বাংলাদেশে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নয়নের জন্য বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। আগামীদিনে এসব উন্নয়ন কাজের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে শেখ হাসিনা সরকারকে বিজয়ী করার আহ্বান জানান। এসময় তিনি রামুর ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য অনুদান দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী ও ধর্মমন্ত্রীর প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

আওয়ামীলীগের আমলেই সব ধর্মের মানুষ স্বাধীনভাবে নিজ নিজ ধর্মীয় উৎসব পালন করছে। এটি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সবচেয়ে বড় অর্জন। কিন্তু বিভিন্ন সময় দুস্কৃতিকারীরা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার জন্য ষড়যন্ত্র করে থাকে। তাদের বিরুদ্ধে আমাদেরকে সজাগ থাকতে হবে। যাতে কোনভাবেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উপর তারা আঘাত করতে না পারে।

বুধবার (৪ জুলাই) বিকেলে উপজেলা পরিষদ মিলতায়নে বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের উদ্যোগে ধর্মীয় উপাসনালয়ের জন্য চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম এ কথা বলেন।
সাংবাদিক অর্পন বড়–য়ার সঞ্চালনায় সভাপতির বক্তব্যে রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. লুৎফর রহমান বলেনÑ মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত বাংলাদেশের অন্যতম চেতনা ধর্ম নিরপেক্ষতার উপর ভিত্তি করেই রাষ্ট্র পরিচালিত হচ্ছে। ফলে ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার’ এই শ্লোগানেই আমরা আমাদেরকে এই সোনার বাংলাদেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবো।

এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান সুপ্ত ভূষণ বড়–য়া, প্রজ্ঞামিত্র বনবিহারের অধ্যক্ষ শারমিত্র থের, বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কক্সবাজার জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ট্রাস্টি প্রিয়তোষ শর্মা চন্দন, কক্সবাজার বৌদ্ধ সুরক্ষা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অমরবিন্দু বড়–য়া অমল, জাপান ভিত্তিক মানবতাবাদী সংগঠন রিসসো কোসেই কাই এর রামুর পরিচালক দুলাল বড়–য়া। এতে বীর মুক্তিযোদ্ধা রমেশ বড়–য়া, রামু বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক সিপন বড়–য়াসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র ত্রিপিটক পাঠ করেন রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহারের আবাসিক শীলপ্রিয় থের। এসময় রামুর ১৭ টি বৌদ্ধ মন্দিরের প্রতিনিধিদের হাতে ১২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার অনুদানের চেক তুলে দেন অতিথিরা।