ঢাকা, সোমবার, ৪ জুলাই ২০২২

যত্রতত্র সিএনজির ভয়াবহ যানজটে নাকাল পেকুয়াবাসী

প্রকাশ: ২০১৭-০৩-২১ ১০:৩৭:২৯ || আপডেট: ২০১৭-০৩-২১ ১০:৪৫:০৮

যত্রতত্র সিএনজির ভয়াবহ যানজটে নাকাল পেকুয়াবাসী

সাইফুল ইসলাম বাবুল, পেকুয়া::
বরইতলী-মগনামা সড়কের পেকুয়া বাজার অংশে ৪টি আলাদা স্পটে প্রায় দেড় শতাধিক সিএনজি অটোরিকশা যত্রতত্রভাবে পাকিং করে রাখায় ভয়াবহ যানজটে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পেকুয়াবাসীকে।

এছাড়া একই সড়কের চৌমুহনী, মগনামা ঘাটসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ষ্টেশনে যানজটের মূল কারণ অবৈধ সিএনজি ষ্টেশন। এই সড়ক দিয়ে পেকুয়া উপজেলা, পার্শ্ববর্তী কুতুবদিয়া উপজেলার অধিকাংশ মানুষসহ উপকূলীয় অন্যান ইউনিয়নের প্রায় ৩০-৩৫ হাজার যাত্রী নিয়মিত যাতায়াত করে থাকে। তাই এ যানজটের দরূন প্রতিদিন ওই বিপুল পরিমাণ মানুষকে পোহাতে হচ্ছে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ।

পেকুয়া বাজারের ব্যবসায়ীরা বলেন, আমরা আলোচনার মাধ্যমে যানজটের কারণ চিহ্নিত করে স্থানীয় প্রশাসনকে অবহিত করেছি। কিন্তু যানজট নিরসনে উদ্যোগী হলেও অবৈধ সিএনজি ষ্টেশন অপসারণে উদ্যোগী নয় স্থানীয় প্রশাসন। এতে বাজারে যেমন নিয়মিত যানজট লেগেই রয়েছে ঠিক একইভাবে আমরা ব্যবসায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি প্রতিনিয়ত।

এই সড়ক ব্যবহারকারী বেশ কয়েকজন যাত্রী বলেন, গাড়ীযোগে পেকুয়া বাজার পার হতে আমাদের প্রায় আধাঘন্টা সময় লেগে যায়। অবৈধ স্ট্যান্ড দ্বারা রাস্তা দখল করে রাখায় গাড়ীর চাপের সাথে যানজটের দৈর্ঘ্যও বাড়তে থাকে।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে পেকুয়া বাজারের বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, থানা পুলিশের অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে পেকুয়া বাজার বর্তমানে সিএনজি গাড়ির দখলে চলে গেছে। তারা রাস্তা যেমন দখল করে রাখে একইভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রবেশদ্বার অবরুদ্ধ করে রাখে। দোকানের সামনে গাড়ী রাখতে নিষেধ করলে চালকরা খারাপ আচরন করে। এতে আমাদের কেনাবেচা চরম ব্যাহত হচ্ছে। এবিষয়ে আমরা প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

পেকুয়া বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হাজী আকতার আহমদ বলেন, পেকুয়া বাজারে যানজট নিরসনের জন্য আমরা পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত আবেদন করেছি। উপজেলা আইনশৃংঙ্খলা কমিটিতেও এব্যাপারে আলোচনা করেছি। স্থানীয় প্রশাসন এব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন ব্যবসায়ীদের।

এব্যাপারে বরইতলি-মগনামা সড়ক সিএনজি অটোরিকশা শ্রমিক সমিতির সভাপতি নাছির উদ্দিন পেকুয়া বাজারে ৪টি স্ট্যান্ড থাকার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সিএনজি চালিত অটোরিকশার কারণে পেকুয়া বাজারে কোন যানজট হচ্ছে না। সিএনজি চালিত অটোরিকশার কারণে যানজট হলে স্থানীয় প্রশাসন ব্যবস্থা নিবে।

পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জিয়া মো. মোস্তাফিজ ভূঁইয়া বলেন, পেকুয়া বাজারে যানজট নিরসনে থানা পুলিশ সদা তৎপর। বাজারে সিএনজি অটোরিকশার অবৈধ স্ট্যান্ডগুলো খুব শীঘ্রই অপসারণ করা হবে।

পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহাবুব উল করিম বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগতভাবে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।