ঢাকা, সোমবার, ৪ জুলাই ২০২২

উখিয়ার বালুখালী টাল পরিদর্শনে মিয়ানমারের তদন্ত কমিশন

প্রকাশ: ২০১৭-০৩-২০ ১৭:৩৮:৫৫ || আপডেট: ২০১৭-০৩-২০ ১৭:৩৮:৫৫

শহিদুল ইসলাম, উখিয়া ::
মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর চরম নির্যাতনের মুখে রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে এ্সে ককসবাজারের উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী টালে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেছেন মিয়ানমার তদন্ত কমিশনের সদস্যরা ।

সোমবার সকাল সাড়ে ৯টারসময় কমিশনের সাধারন সম্পাদক জ্য মিন্ট পের নেতৃত্বে সদস্যের   মিয়ানমার প্রতিনিধিদল উখিয়ার বালুখালী টালে পরিদর্শনে যান।  এ্ররপর বালুখালী মসজিদের সামনে  নির্যাতনের শিকার ৫০ নারী-পুরুষের সাথে কথা বলেছেন। ৪/৫জন রোহিঙ্গা সেখানকার সেনাবাহিনীর নির্যাতনে হাত-পা ভাঙ্গা ও গুলির দাগ দেখায় । উখিয়ার বালুখালী টালে এক হাজার দশটি পরি বার রয়েছে। এখানে বেশ কয়েকটি এনজিও সামান্য সাহায্য -সহযোগিতা করছে বলে জানিয়েছেন  রোহিঙ্গা  আবদুর রহমান । বৈঠকে থাকা লায়লা বেগম; আয়েশা বেগম, নুর আয়েশা  বলেন , মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী কতৃক ব্যাপক নির্যাতন করা হয়েছে । নিজ দেশে সবাই ফিরতে চাই।  সেখানে বাচাঁর গ্যারেন্টি দিতে হবে। আমাদের সহায় –সম্পদ ফেরত দিতে হবে। মিয়ানমার সামরিক জান্তা  নির্যাতন করছে সেটা স্বীকার করেছে প্রতিনিধি দল ।  মিয়ানমারের পোয়া খালী গ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল ফয়েজ বলেন  প্রতিনিধি দলকে একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে । সেখানে শতাধিক নির্যাতনের শিকার নারী-পুরুষের নাম রয়েছে।  তাড়াতাড়ি মিয়ানমার ফিরতে চাই। মা-বাবা কে দেখতে চায়।   উখিয়ার বালুখালী টালের মাঝি খলিল বলেন  হাতে একদম  কাজ নেই।  কি খাব জানি না । সমাজের দানশীল ব্যাক্তিদের এগিয়ে আসার আহবান ।  নুর জাহান বলেন স্বামী নেই, তিন ছেলে -মেয়ে নিয়ে কোন রকম বেচেঁ আছি।  আরেক ব্লকের মাঝি লালু  বলেন;  আমরা নিজ দেশে যেতে রাজি, তবে নাগরিকত্ব দিতে হবে। মিয়ানমার তদন্ত কমিশনের অন্য সদস্যরা হলেন,অ্যং তুন থেট,থুন মিনথ, নায়েট সোয়ে, থেথে জিন; কায়েন নেগাই,নায়ন থুন, অ্যং মিনথ,মংছিং থোয়াই, মায়েন্ট ও শাদুল্লাহ শ্হা।

এসময় ছিলেন ককসবাজার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার চাই ল উা মারমা, সহকারী কমিশনার (ভ’মি) নুরু উদ্দিন মো:শিবলী. উখিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের।