ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শণে নরওয়ে, ডেনমার্ক ও সুইডেনের রাষ্ট্রদূত॥

প্রকাশ: ২০১৭-০১-১৭ ১৯:৩৭:৪২ || আপডেট: ২০১৭-০১-১৭ ১৯:৩৭:৪২

৩ দিনের সফর সম্পন্ন
কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শণে নরওয়ে, ডেনমার্ক ও সুইডেনের রাষ্ট্রদূত॥

আবদুর রাজ্জাক,কক্সবাজার::
কক্সবাজারের সীমান্ত এলাকা উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে ৩ দিনের সফর সম্পন্ন করেছেন সুইডেনের রাষ্ট্রদূত জোহান ফ্রিসেল, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত হ্যানে ফুগল এস্কায়ের ও নরওয়ে’র রাষ্ট্রদূত মেরেট লূনডেমা। সফরের প্রথম দিন ১৫ জানুয়ারি রবিবার কক্সবাজার পৌছেঁই জেলা প্রশাসন ও ত্রান ও শরনার্থী পত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি)’র দায়িত্বশীল সহ বিজিবি,এনজিও প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক বসেন। এরপর সোমবার ১৬ জানুয়ারি সোমবার সকালে টেকনাফের নয়াপাড়া শরনার্থী শিবির, লেদা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবির ও সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমারের বর্বরতার শিকার হয়ে আসা নতুন রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলেন। বিকলে এ প্রতিনিধি দল জাদিমোড়া রোহিঙ্গা পল্লীসহ নতুন রোহিঙ্গা বস্তি পরিদর্শন করেন। এরপর সফরের শেষ দিন ১৭ জানুয়ারী মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০ টায় নরওয়ে,ডেনমার্ক ও সুইডেনের রাষ্ট্রদূতরা উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প ইনচার্জের কার্যালয়ে এনজিও প্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে রোহিঙ্গাদের হাল অবস্থা সম্পর্কে জানতে চান। এসময় ক্যাম্প ইনচার্জ মোঃ শামশুদ্দোজ্জা নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত রোহিঙ্গাদের জীবন যাপনের কথা তুলে ধরেন। পরে তিন দেশের রাষ্ট্রদূত কুতুপালং বনভূমির পাহাড়ে ঝুঁপড়ি বেঁেধ আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা বস্তি ঘুরে দেখেন। তারা রোহিঙ্গাদের সংকট সমস্যা ও জীবন জীবিকা সম্পর্কে রোহিঙ্গাদের সাথে সরাসরি কথা বলেন এবং অবহিত হন। তিন দেশের রাষ্ট্রদূতের উদ্ধৃতি দিয়ে ক্যাম্প ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আবু ছিদ্দিক জানান, তিন দেশের রাষ্ট্রদূত মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের উপর দমন নিপীড়নের ঘটনা সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন এবং এখানে তারা কোন সমস্যায় আছে কিনা তাও খোঁজখবর নিয়েছেন। তিন দেশের রাষ্ট্রদূত রোহিঙ্গাদের আবাসস্থল ঝুঁপড়ি গুলো প্রত্যক্ষ করে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা বস্তি পরিদর্শনকালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুুল হক টুটুল, সহকারি পুলিশ সুপার (ডিএসবি) কাজী হুমায়ুন রশিদ ও উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল খায়ের সহ বিভিন্ন এনজিও প্রতিনধি উপস্থিত ছিলেন। ১৭ জানুয়ারি মঙ্গলবার বিকেলে সাড়ে তিনটায় এই ৩ দেশের রাষ্ট্রদূতগন কক্সবাজার ত্যাগ করেছেন।

এদিকে সফরের ব্যাপারে টেকনাফস্থ লেদা রোহিঙ্গা বস্তির সভাপতি ডা. দুদু মিয়া বলেন, রাষ্ট্রদূতগন ক্যাম্পের বর্তমান অবস্থার পাশাপাশি মিয়ানমারের সাম্প্রতিক সময়ের বর্বরতার কথা ধর্য্যসহকারে শুনেন। নয়াপাড়া শরনার্থী ক্যাম্পের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জোবাইর জানান সময় স্বল্পতার কারনে রাষ্ট্রদূতগত তাদের কমিটির সাথে নিবার্ধিত বৈঠকটি বাতিল করছেন। তবে ক্যাম্পের বিভিন্ন এনজিও কার্যক্রম পরিদর্শনের পাশাপাশি কয়েকজন নতুন রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলেন এবং সাম্প্রতিক ঘটনা প্রবাহ সম্পর্কে খোজঁ খবর নেন। এ সময় নয়াপাড়া শরনার্থী ক্যাম্প ইনচার্জ ও সিনিয়র সহকারী সচিব মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, আর্ন্তজাতিক অভিবাসন সংস্থা কক্সবাজার অফিস প্রধান সংযুক্তা সাহানী, ও ইউএনএইচসিআর প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।