ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

উখিয়ায় শহীদ এটিএম জাফর আলম উচ্চ বিদ্যালয়ের শুভ সূচনা

প্রকাশ: ২০১৭-০১-০৭ ২০:১৬:১৩ || আপডেট: ২০১৭-০১-০৭ ২১:২৬:০৯

উখিয়ায় শহীদ এটিএম জাফর আলম উচ্চ বিদ্যালয়ের শুভ সূচনা

জসিম আজাদ, সিএসবি২৪ ডটকম:

মুক্তিযুদ্ধকালীন সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সারির শহীদ এটিএম জাফর আলমের স্মৃতি রক্ষার প্রচেষ্ঠায় তাঁর জন্ম উপজেলায় স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর প্রতিষ্ঠিত একমাত্র স্মৃতিচিহ্ন ‘শহীদ এটিএম জাফর আলম উচ্চ বিদ্যালয়’ এর শুভ উদ্বোধন ও পাঠদান অনুষ্ঠান ৭ জানুয়ারী (শনিবার) সকাল ১০ টায় কোর্টবাজার ভালুকিয়া রোড়স্থ অস্থায়ী ক্যাম্পাসে প্রধান শিক্ষক মাহমুদুল করিমের সভাপতিত্বে ও সহকারী শিক্ষক রুমি বড়ুয়া সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উখিয়া বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষাবিদ আবদুল হক চৌধুরী, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যথাক্রমে, শহীদ এটিএম জাফর আলমের ছোট ভাই ফরিদুল আলম, মাস্টার নুরুল হাকিম আজাদ, সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল কবির চৌধুরী, নুরুল ইসলাম বাবু, মাস্টার মুকবুল হোসেন সিকদার, রশিদ আহমদ, মাহবুবুর রহমান মাহবুুব সাংবাদিক রাশেল চৌধুরী, শাহজাহান চৌধুরী, আবদুর গফুর মেম্বার, সাবেক সেনা সদস্য ছাবের আহমদ। সভায় বক্তারা বলেন, উখিয়ার কোটবাজার কেন্দ্রিক ঢাবি’র প্রথম সারির শহীদ এটিএম জাফর আলম উচ্চ বিদ্যালয় নামে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্টিত হওয়ায় তাঁর বীরত্বগাথা আত্মত্যাগের প্রতি গভীর সম্মান সম্মান প্রদর্শন করা হয়। তাছাড়া উখিয়া উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের ৪টির সংযোগস্থল কোটবাজার।

কোটবাজারকে কেন্দ্র করে প্রায় লক্ষাধিক মানুষের বসবাস। কিন্ত এ মানুষের জন্য পর্যাপ্ত বিদ্যালয় না থাকায় বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা সময়ের দাবী ছিলো। আজ “শহীদ এটিএম জাফর আলম উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্টিত হওয়ার মধ্যদিয়ে তা পুরণ হলো। পাশাপাশি এ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে উখিয়ায় যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকবে এ শহীদ জাফরের আত্মত্যাগের গৌরবোজ্জল ইতিহাস। বক্তারা আরো বলেন, শহীদ জাফরের নামে বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গা বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান থাকলেও উখিয়ায় এই শহীদের কোন স্মৃতি চিহ্ন ছিলনা । আজ এই দায় থেকে উখিয়াবাসী মুক্তি পেয়েছে। সর্বোপরি বাংলাদেশকে বঙ্গবন্ধু মুজিবের সোনার বাংলায় পরিনত করতে বর্তমান শিক্ষাবান্ধব সরকার শিক্ষা প্রসারে কাজ করে যাচ্ছে এবং সবাইকে স্ব স্ব অবস্থান থেকে শিক্ষা প্রসারে এগিয়ে আসার আহবান জানান। এ সময় অভিভাবক, সুশীল সমাজ, শিক্ষার্থীদের মাঝে অনেক উৎসাহ উদ্দিপনা পরিলক্ষিত হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রথম সারির শহিদ এটিএম জাফর আলম ( মুক্তিযোদ্ধার আইডি নং- ০২০৬০৫০০৪১, গেজেট নং ৩৩১)। পুরো নাম আবু তাহের মোহাম্মদ জাফর আলম। কক্সবাজার জেলার উখিয়া উপজেলার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের ৯নং ওয়াডের রুমখাঁপালং গ্রামের ছৈয়দ হোসাইন মাস্টারের সন্তান ও মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমের বড় ভাই। গত জোট সরকারের আমলে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়, সড়ক ও রেলপথ বিভাগ সজস-৩ শাখা প্রজ্ঞাপন তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০০৯ নং সওরে/সজস-৩/১এম-৮০/ ৯৭-১৩ কক্সবাজার লিংকরোড থেকে টেকনাফ পর্যন্ত (৭৯.০০ কি. মি) আরাকান সড়কের নাম পরিবর্তন করে শহীদ এটিএম জাফর আলম আরাকান সড়ক হিসেবে নামকরণ করা হয়। বাংলাদেশ গেজেট, ৮ জানুয়ারি ২০০৯-এ অন্তর্ভূক্ত আছে এটিএম জাফর আলম আরাকান সড়কের নাম। কক্সবাজার- টেকনাফ আরাকান সড়কটি এখন শহীদ এটিএম জাফর আলম সড়ক।