ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২

নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানি ১৭ ফেব্রুয়ারি

প্রকাশ: ২০১৫-১২-২৮ ১২:১৬:৫৭ || আপডেট: ২০১৫-১২-২৮ ১২:১৬:৫৭

khaleda-3_103286

অনলাইন ডেস্ক::

নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ (চার্জ) গঠনের শুনানি পিছিয়ে আগামী বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি পুনর্নির্ধারণ করেছেন আদালত। ঢাকার বিশেষ জজ-৯ আমিনুল ইসলামের আদালতে মামলাটির বিচারিক কার্যক্রম চলছে। প্রধান আসামি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করা অভিযোগ গঠনের শুনানি স্থগিত ও আদালতে হাজির হতে সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আজ সোমবার নতুন দিন ধার্য করেন আদালত। অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে আদালতে হাজির হননি খালেদা জিয়া। তার পক্ষে সময়ের আবেদন জানান তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া। একই সঙ্গে অভিযোগ গঠনের শুনানি স্থগিত রাখারও আবেদন জানান সানাউল্লাহ মিয়া। আবেদনে তিনি বলেন, মামলাটি বিচারিক আদালতে চলবে বলে দেওয়া হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল দায়ের করা হয়েছে। আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এ শুনানি স্থগিতের আরজি জানান তিনি। গত ৩০ নভেম্বর হাইকোর্টের আদেশে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন নেন খালেদা জিয়া। ওই দিন ২৮ ডিসেম্বর এ মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন ধার্য করে ওই দিন খালেদাকে আদালতে হাজিরের নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত। গত ১৮ জুন খালেদার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা নাইকো দুর্নীতি মামলার কার্যক্রম বিচারিক আদালতে চলবে বলে রায় দেন বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান ও বিচারপতি জাফর আহমেদের হাইকোর্ট বেঞ্চ। মামলাটি বাতিলে খালেদার রিট আবেদন ও এ-সংক্রান্ত রুল খারিজ এবং বিচারিক কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে তাকে দুই মাসের মধ্যে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। নাইকো ছাড়াও গ্যাটকো ও বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা দুটিও বিচারিক আদালতে চলবে বলে চূড়ান্ত রায় দিয়ে খালেদাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এসব দুর্নীতি মামলার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে তা বাতিলের আবেদন জানিয়ে পৃথক পৃথক রিট করেছিলেন খালেদা জিয়া। এসব রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে দুর্নীতি মামলাগুলোর কার্যক্রম স্থগিত ও রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। কয়েক বছর ধরে স্থগিত থাকার পর মামলাগুলো সচলের উদ্যোগ নিয়ে রুল নিষ্পত্তির আবেদন জানায় দুদক। পরে পৃথক পৃথক শুনানি শেষে মামলা তিনটি সচলের রায় দেন হাইকোর্ট। এসব মামলায় স্থায়ী জামিনে রয়েছেন খালেদা জিয়া।

সিএসবি২৪/কেবি