ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

কোটবাজারে অভিজাত খাদ্য বিতান স্বাদে অসাধু খাদ্য বিক্রি: সেনাবাহিনীর হাতে ধরা

প্রকাশ: ২০১৫-১২-২৮ ১০:৫০:২১ || আপডেট: ২০১৫-১২-২৮ ১০:৫০:২১

download
মুহাম্মদ ইদ্রিস, কোটবাজার (উখিয়া) ॥
উখিয়ার জনবহুল বাণিজ্যিক স্টেশন কোটবাজারে অভিজাত খাদ্য বিতান স্বাদের বিরুদ্ধে অসাধু খাদ্য বিক্রির রমরমা অভিযোগ উঠেছে। ‘খাদ্য জগতে একধাপ এগিয়ে’ এ ধরনের হরেক রকম প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কোটবাজার স্টেশনে ‘স্বাদ’ নামক খাদ্য বিতানটি ভেজাল, মেয়াদ উত্তীর্ণ খাবার ও পানীয় বিক্রি করে আসছিল। অভিজাত খাদ্য বিক্রির নামে স্বাদ কোম্পানীর বিক্রিত ভেজাল, মেয়াদ উত্তীর্ণ এসব অসাধু খাবার খেয়ে ভোক্তা সাধারণের পেটের পীড়াসহ নানান রোগে আক্রান্ত হতো হত। তবে দীর্ঘদিন ধরে খাদ্য অভিজাত খাদ্য কোম্পানী ‘স্বাদ’ ভোক্তা সাধারণের সাথে প্রতারণা ও ফাঁকি দিয়ে আসলেও বাংলাদেশের গৌরবোজ্জ্বল চৌকস সেনাবাহিনীকে ‘স্বাদ’ নামক অসাধ্ ুখাদ্য বিতানটি ফাঁকি দিতে পারেনি। গতকাল রবিবার কোটবাজার স্টেশনে অবস্থিত স্বাদ কোম্পানীর শাখায় মেয়াদোত্তীর্ণ, ভেজাল ও অসাধু খাদ্য বিক্রি করা কালে সেনাবাহিনীর কাছে হাতে-নাতে ধরা খেতে হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শীতকালীন মহড়ারত সেনাবাহিনীর সদস্যরা পানীয় জল ও শুকনো খাবার ক্রয়ের জন্য কোটবাজার সৈকত রোড়স্থ অভিজাত খাদ্য বিতান স্বাদ-এ যায়। এ সময় দোকানের কর্মচারীরা সেনাবাহিনীর সদস্যদের কোকাকোলা কোম্পানীর ১১/১৫ তারিখের মেয়াদ উত্তীর্ণ ‘¯প্রাইট’ পানীয় ও স্বাদের তৈরি ৪/৫ দিনের পঁচা-বাসী পাউরুটি বিক্রি করে। মেয়াদ উত্তীর্ণ এসব পন্যাদি নিয়ে চলে গেলেও সন্ধ্যার দিকে সেনাবাহিনীর সদস্য রব্বানী মেয়াদ উত্তীর্ণ পানীয় জল ও পাউরুটি নিয়ে স্বাদ নামক অসাধু খাদ্য বিক্রির দোকানে নিয়ে আসেন। এ সময় সেনাবাহিনীর সদস্যরা উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ভেজাল বিরোধী অভিযানের কথা বললে দোকানের কর্মচারীরা সেনাবাহিনীর কাছে ভূল স্বীকার ও ক্ষমা প্রার্থনা করেন। পরে কোটবাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: আলমগীর হাসান ও কোটবাজার দোকান মালিক সমবায় সমিতির সভাপতি হাজী আবু ছিদ্দিকের মধ্যস্থতায় স্বাদের অসাধু খাদ্য বিক্রির বিষয়ে কড়া সতর্ক করে দেন। এ সময় উপস্থিত অনেক ভোক্তা সাধারণ অভিযোগ করে জানিয়েছেন, নামে মাত্র অভিজাত খাদ্য বিতানের নাম দিয়ে ভোক্তাদের সাথে প্রতারণা করে আসছে স্বাদ নামক খাদ্য বিতানটি। তারা জানান, স্বাদের তৈরিকৃত মিষ্টি, পাইয়েস, দই, আইসক্রীম, পাউরুটি, সিঙ্গারা, চমুছা, ডেনিস, হরলিক্স, দুধ, বিস্কুট ও পানীয় জলসহ বিভিন্ন প্রকার খাদ্যদ্রব্যাদি ভেজাল ও মেয়াদ উত্তীর্ণে ভরা। মেয়াদ চলে গেলেও কোটবাজার খাদ্য বিতানের মালিক ও কর্মচারীরা এসব পঁচা-বাসি খাবার বিভিন্নভাবে প্রতারণা করে ভোক্ত পর্যায়ে বিক্রি করে থাকে। যার কারণে একটু পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন খাবার খেতে আসা লোকজনকে এসব খাবার খেয়ে পেট ব্যথাসহ নানান রোগে আক্রান্ত হতে হয়। অভিজাত খাদ্য নামধারী প্রতারক খাদ্য কোম্পানী ‘স্বাদ’ কর্তৃক কোটবাজারের মতো একটি বাণিজ্যিক স্টেশনে এ ধরনের অসাধু খাবার বিক্রির বিষয়টি নতুন নয়। এর আগেও অনেকের কাছে ভেজাল, মেয়াদ উত্তীর্ণ ও অসাধু খাবার ও পানীয় বিক্রি করে আসলেও এগুলো যেন দেখার কেউ নেই। কোটবাজারের ব্যবসায়ী ও সচেতন মহল খাদ্য জগতে একধাপ এগিয়ে যাওয়া এ ধরনের প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন প্রচার করে খাদ্য কোম্পানী ‘স্বাদ’ এর অসাধু ভেজাল, মেয়াদ উত্তীর্ণ খাদ্য বিক্রির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

সিএসবি২৪/কেবি