ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২

কোটবাজারের যানজট নিরসনকল্পে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

প্রকাশ: ২০১৫-১২-২৭ ২১:৩৭:৫০ || আপডেট: ২০১৫-১২-২৭ ২১:৩৭:৫০

 

 

মুহাম্মদ ইদ্রিস, কোটবাজার :

উখিয়ার প্রধান বাণিজ্যিক স্টেশন কোটবাজারের যানজট নিরসনকল্পে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে এগিয়ে আসলেন উপজেলা প্রশাসন। রবিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মাঈন উদ্দিনের নেতৃত্বে যানজট নিরসনকল্পে সড়কের জায়গা দখল করে ফুতপাতে অবৈধভাবে গড়ে উঠা ভাসমান ঝুঁপড়ি দোকান উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে। অভিযান চলাকালে ফুতপাতের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদসহ ৭ ঝুঁপড়ি দোকানদার আটক করে। পরে তাদের কাছ থেকে জরিমানা নিয়ে ছেড়ে বলে জানা গেছে। এ সময় বিভিন্ন ঝুঁপড়ি দোকানির কাছ থেকে জরিমানা আদায় করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপে জনবহুল কোটবাজার স্টেশনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে যানজটমুক্ত করায় ব্যবসায়ী, সচেতন মহল ও সাধারণ পথচারী প্রশাসনের এ দৃঢ়চেতা অভিযানকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

জানা যায়, উপজেলার প্রধান বাণিজ্যিক স্টেশন কোটবাজারের এক শ্রেণির দূর্লোভী জমিদার ও কিছু অর্থলিন্সু ইজারাদাররা দীর্ঘদিন ধরে সড়কের জায়গা জবর-দখল করে অবৈধভাবে ভাসমান পানের দোকান, ছনা-মুরি, পান-সুপারি ও ফলমূলের দোকান বসিয়ে লক্ষ লক্ষ হাতিয়ে নেয়। এসব ভাসমান ঝুঁপড়ি দোকান ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে তারা ২০ থেকে ১ লক্ষ থেকে টাকা পর্যন্ত সেলামীসহ মাসিক ১০০ টাকা হারে দোকান ভাড়া আদায় করে আসছিল। জেলার প্রথম শহীদ এটিএম জাফর আলম-আরকান (কক্সবাজার-টেকনাফ) সড়কের কোটবাজার স্টেশনের প্রভাবশালী জমিদার ও ইজারাদার মিলে সড়কের জায়গা জবর-দখল করে অবৈধ স্থাপন নির্মাণ করার কারণে বাণিজ্যিক এ স্টেশনে আগত ক্রেতা-বিক্রেতা ও সাধারণ পথচারীদের চলাচলে মারাত্মক বিঘœ সৃষ্টি হতো। যার ফলে যানজট ছিল কোটবাজার স্টেশনে আগত লোকজনের নিত্য নৈমত্তিক সঙ্গী। ফলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার থানা পুলিশকে সাথে নিয়ে ভাসমান অবৈধ স্থাপনা ও ঝুঁপড়ি দোকান উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে। অভিযান পরিচালনাকালে ৭ জন ঝুঁপড়ি দোকানীকে আটকসহ বিভিন্ন দোকানীর কাছ থেকে জরিমানা আদায় করা হয়। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আটককৃত ৭ ঝুঁপড়ি দোকানীকে জরিমানা আদায় করে ছেড়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে। প্রশাসনের উচ্ছেদ অভিযানকে সাধুবাদ জানিয়ে কোটবাজারের ব্যবসায়ী মহল আর যাতে ফুতপাত দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করতে না পারে তার জন্য ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানিয়েছেন।