ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২

উখিয়ায় স্বামী-স্ত্রীর অনিয়ম শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ

প্রকাশ: ২০১৫-১২-২৪ ১৮:২১:১৮ || আপডেট: ২০১৫-১২-২৪ ১৮:২১:১৮

Protibad

আমি ডা: অনিল কুমার বড়ুয়া বর্তমানে উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার পদে কর্মরত আছি। গত ১৯ ডিসেম্বর ২০১৫ইং তারিখ একাধিক অনলাইন পত্রিকায় শিরোনামে যে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জ্ঞাপন করছি।

সীমাহীন দূর্নীতি, সরকারী ওষুধ বিক্রি করা, অর্থ আত্মসাৎ করা ইত্যাদি যে সমস্ত অনিয়মের খবর আমি ও আমার স্ত্রীর বিরুদ্ধে পত্রিকায় উল্লেখ করা হয়েছে, তা মিথ্যা ও হীন উদ্দেশ্যে প্রণোদিত এবং বিদ্বেষ বশতঃ আমাদেরকে হয়রানি করার অপচেষ্টা মাত্র। সুদীর্ঘ চাকুরী জীবনে আমি কখনও একটি মাত্র সরকারী টেবলেটও বিক্রি করিনি। আমার সরকারী সেবাদান কক্ষে প্রেসক্রিপশন ফি, ওষুধের বেচা-কেনা বা কোন ধরণের আর্থিক লেনদেনও হয় না। বেনামে জমি ক্রয় করা, বেনামে একাউন্টে কালো টাকা রাখা ইত্যাদি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

চতুরার্যসত্য ও বৌদ্ধ কর্মবাদের সহিত স্কুল জীবন হতেই আমার গভীর পরিচয় রয়েছে। কল্যাণ বা পাপ যেরূপ কর্ম করা হয়, কর্তাকে তার দায়াদ বা উত্তরাধিকারী হতে হয়। কর্ম সংস্কারই মরণান্তে ছায়ার ন্যায় অনুগামী হয়। তাই নিজের জন্য বা পরিবারবর্গের জন্য চুরি করে অর্থ কুঁড়িয়ে ইহলোকে বড়লোক বনে যাওয়ার কোন সাধ আমার নেই।

বর্তমান কর্মস্থলে আমার দীর্ঘকাল কর্মরত থাকার কথা উঠে এসেছে পত্রিকায়। নিজের মধ্যে সততা ও কর্মনিষ্ঠা না থাকলে কখনো কারো পক্ষে কোন এলাকায় দীর্ঘকাল চাকুরীরত থাকা সম্ভবপর হয়ে উঠে না।

আমার স্ত্রী মিতা বড়–য়া চাকুরীর কর্ম সম্পর্কেও পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে। তার স্বভাব চরিত্রে আমার জীবনের আদর্শের প্রতিফলন ঘটেছে। তিনিও একজন সৎ, কর্তব্য পরায়ণা কর্মচারী।

নিজ গ্রামের জনৈক প্রতিবেশীর সাথে বর্তমানে নিজ জায়গা-জমির বিরোধ রয়েছে। এমতাবস্থায় পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে আমাদের মান-সম্মান ক্ষুন্ন করা হয়েছে। সম্মানিত পত্রিকা পাঠক সমাজকে বিভ্রান্ত করা হয়েছে এবং তাঁদের মূল্যবান সময় নষ্ট করা হয়েছে। আমি এহেন মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জ্ঞাপন করছি।

প্রতিবাদকারী

ডাঃ অনিল কুমার বড়ুয়া
উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার
জালিয়াপালং ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র
উখিয়া, কক্সবাজার।