ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২

আমীন আমীন ধ্বনিতে মুখরিত সাগর পাড়, শেষ হলো মিনি ইজতেমা 

প্রকাশ: ২০১৫-১২-১৯ ১৫:১৩:৩৮ || আপডেট: ২০১৫-১২-১৯ ১৫:১৩:৩৮

iz 1

আতিকুর রহমান মানিক, কক্সবাজার:

কক্সবাজারে লাখো মুসল্লির আমিন আমিন ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে শেষ হল তিন দিনের জেলা ইজতেমা। বিমান বন্দরের দক্ষিণ পার্শ্বে ঝাউবন ও সংলগ্ন এলাকায় গত বৃহস্পতিবার ফজর নামাজের পর আম বয়ানের মাধ্যমে শুরু হওয়া উক্ত ইজতেমায় সমগ্র দেশ থেকে ছুটে আসেন লাখো মুসল্লি। বিদেশ থেকেও আসেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মেহমান। বৃহস্পতি ও শুক্রবার নামাজ-ওয়াজ-যিকির ও মোনাজাতের মাধ্যমে ইবাদতে মগ্ন থাকেন সমাবেত মুসল্লিরা। শুক্রবার জুমার সময় অনুষ্ঠিত হয় স্মরণ কালের বৃহত্তম জুমার জামাত। শুক্রবার সন্ধায় ও রাতে বৃষ্টি জনিত ঠান্ডা আবহাওয়ায় কিছুটা ছন্দপতন ঘটলেও শনিবার সকাল থেকে আখেরী মোনাজাতের জন্য প্রস্তুতি নেন সবাই। কক্সবাজার শহর ও জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মোনাজাতে শরিক হতে ছুটে যান অনেকেই। সরে জমিনে দেখা যায়, সকাল ১০টার মধ্যে আখেরি মুনাজাতে অংশ নিতে আসার মুসল্লি দ্বারা পুরো ইজতেমা ময়দান ও চারপাশ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। গুরুত্বপূর্ণ বয়ান করেন কাকরাইলের শীর্ষ আলেমগণ ও মুরব্বীগণ। শেষ দিনের আম ও খাসবয়ানে মুরব্বিরা দ্বীনের দাওয়াত, মেহনত, তাবলিগের উদ্দেশ্য, আগামী এক বছরের করণীয় এবং নতুন জামাতের উদ্দেশ্যে দিকনির্দেশনামূলক আলোচনা করেন। মুরব্বিরা বলেন, মানুষের সবচেয়ে বড় দায়িত্ব হচ্ছে দ্বীনের দাওয়াতে ব্যস্ত থাকা। দ্বীনের মেহনত মূলত প্রতিটি মানুষের প্রকৃত কাজ। এ কাজ নবীওয়ালা কাজ। মেহনতের মাধ্যমে দিল জিন্দা করা যায়। যে যত বেশি মেহনত করবে, সে তত বেশি কামিয়াবি হাসিল করবে। দুনিয়া হচ্ছে ক্ষণস্থায়ী। দুনিয়াকে কেউ যদি স্থায়ী ঠিকানা মনে করে তাহলে ভুল হবে। দুনিয়াই থেকে আখেরাতের বাণিজ্য করে নিতে হবে। আল্লাহর তরিকা অনুসারে জীবন চালাতে হবে। দুপুর পৌঁনে বারটায় মোনাজাত শুরু করেন তাবলীগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বি মৌলানা মোঃ হোছাইন। মোনাজাতে দেশ-জাতি ও বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়। মোনাজাতের সময় চারদিকে লাখো মুসল্লির কণ্ঠে উচ্চারিত হয় আল্লাহ আল্লাহ ধ্বনি। প্রায় আধ ঘন্টা ব্যাপী চলে মোনাজাত। এ সময় অশ্র“ সজল চোখ ও লাখো কণ্ঠের আমীণ ধ্বনিতে মুখরিত হয় ইজতেমা প্রাঙ্গন। মোনাজাত শেষে যোহর নামাজের জামাতে অংশ নেন সবাই।