ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২

হ্নীলা ইউনিয়ন ভূমি অফিস অনিয়ম-দূর্নীতি : ইউএনওর পরিদর্শনে সত্যতা

প্রকাশ: ২০১৫-১১-০২ ২০:২৬:১৪ || আপডেট: ২০১৫-১১-০২ ২০:২৬:১৪

সাদ্দাম হোসাইন,হ্নীলা:
টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়ন ভূমি অফিস দীর্ঘদিন ধরে অনিয়ম-দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত হওয়ায় জন ভোগান্তি চরমে পৌঁছেছে। ইউএনও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এর সত্যতা পেয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেওয়ায় জনমনে স্বস্থি ফিরে এসেছে।

২ নভেম্বর দুপুর ২টারদিকে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোজাহিদ উদ্দিন হ্নীলা ইউনিয়ন ভূমি অফিস আকস্মিক পরিদর্শনে যান। এ সময় তিনি ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আক্তার সেলিমের নিকট অফিসের রাজস্ব আদায় ও দাখিলাসহ অন্যান্য রেজিষ্টার চাইলে তিনি গড়িমসি করেন। উক্ত কর্মকর্তা উলট-পালট কথা বলে শেষ পর্যন্ত মোটর সাইকেলযোগে গিয়ে বাহির হতে এসব এনে দেন। এই অফিসে দীর্ঘদিন ধরে কতিপয় ভূমি দালালের মধ্যস্থতায় খাজানা ও দাখিলা কাটাতে অতিরিক্ত টাকা নেওয়া,নিয়মিত অফিস না করা,গভীর রাতে টাকার বিনিময়ে অফিস কার্যক্রম সম্পাদন, জাতীয় পতাকা না তোলা,একাধিক রিসিভ বই ব্যবহারসহ নানাবিধ অভিযোগ রয়েছে। এইদিন সকালে জনৈক ব্যক্তি হতে ৬৫ শতক (বিএস দাগের-৩৬৪,৭৩৪,৭৪২,৭৪৩) দাখিলা বাবদ ২০৫০ টাকা বিকাশে গ্রহণ করেছে বলে জানা গেছে। ভূমি দালালেরা মোটাংকের চুক্তি নিয়ে এই অনিয়মের বাসা বেঁধেছে বিভিন্ন মহল মনে করেন। একটি জমির নামজারী করতে আবেদন বাবদ কোর্ট ফি,নোটিশ জারীর ফি,রেকর্ড সংশোধন ফি,ও মিউটেশন খতিয়ান ফিসহ সরকারীভাবে যা নেওয়ার নিয়ম রয়েছে তা উপেক্ষা করে দালাল চক্রের মাধ্যমে মোটাংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে এই সরকারী অফিসকে অনিয়ম-দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত করেছে। এছাড়া প্রতিটি নামজারি,মিসকেস পরিচালনা,খাস জমি বরাদ্দসহ নানা ক্ষেত্রে সরকারি আইন বর্হিভূতভাবে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হয় বলে ভূক্তভোগীদের অভিযোগ। চাহিদামতে অর্থ দিতে ব্যর্থ হলে গ্রাহকদের হয়রানী করা হয়। অতিরিক্ত অর্থ আয়ের পথ পরিস্কার রাখার জন্য এ যঃঃঢ়://বীঢ়.নন.ড়ৎম.নফ:৭৭৭৮/ঢ়ষং/রসঢ়/ভ?ঢ়=১০৪অফিসকে ঘিরে অভিযুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহযোগীতায় গড়ে তোলা হয়েছে দালালচক্র। পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ইউএনও শাহ মোজাহিদ উদ্দিন বলেন দূর্নীতি ও অনিয়মের সত্যতা পেয়েছি। এসবের প্রতিকার ও অভিযুক্ত ভূমি অফিসারের কঠোর শাস্তি চেয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর রির্পোট পেশ করা হবে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অভিযুক্ত ভূমি অফিসারের বক্তব্য নেওয়ার জন্য মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন-আমরা অনিয়ম না করলেও তিনি বড় কর্তা হিসেবে দোষ পান। বাকি ঘটনা আপনারা দেখেছেন।